Breaking News
Home >> Breaking News >> জাতীয় সড়ক সম্প্রসারনে উচ্ছেদের মুখে পড়া ব্যবসায়ীদের প্রতি মানবিক মুখ দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী

জাতীয় সড়ক সম্প্রসারনে উচ্ছেদের মুখে পড়া ব্যবসায়ীদের প্রতি মানবিক মুখ দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী

স্টিং নিউজ সার্ভিস, কৃষ্ণনগর, নদিয়াঃ জাতীয় সড়ক সম্প্রসারনে উচ্ছেদের মুখে পড়া ব্যবসায়ীদের প্রতি মানবিক মুখ দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় l বুধবার নদিয়ার কৃষ্ণনগরে জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাকে সময় দিন, দেখি কীভাবে করা যায়।

আমি মনে করি, জাতীয় সড়কের ধারে যারা দোকান করে ব্যবসা করতেন, তাদের জীবন-জীবিকা রয়েছে। মানবিক কারণেই  বিষয়টি দেখা উচিত। আমাকে সময় দিন। হয়তো খুব ভালো করতে পারব না। তবে আপনাদের রুটি-রোজগারের যাতে ব্যবস্থা করা যায়, সেটা দেখছি। যেখানে সরকারের জমি রয়েছে বা আপনারা যে জমির ঠিকানা দিয়েছেন, সেই জমি যদি কাজে লাগিয়ে কিছু করা যায়, তা আমি দেখছি। ‘ ব্যক্তিগত জমিতেও ছোট ছোট দোকান করে দেওয়া যায় কী না, সেটাও দেখা হবে বলে মুখ্যমন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অবশ্যই আমি একটা কিছু করবই। ‘কল্যাণী স্পিনিং মিলের পড়ে থাকা জায়গায় কিছু করা যায় কী না, সেই বিষয়টি নিয়েও প্রশাসনিক বৈঠকে আলোচনা হয়।

যদিও চেম্বার অব কমার্স এর পক্ষ থেকে ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের সরকারি পরিচয় পত্র দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হলে, মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওটা আপনারা দেখুন।  সবকিছু সরকার কেন করবে? ‘ জেলা পরিষদের টেন্ডার জমা দেওয়া নিয়ে সশরীরে কাউকে হাজির হতে হয় কিনা, সেই বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন মুখ্যমন্ত্রী।

যদিও মুখ্যমন্ত্রীকে আধিকারিকরা জানান, এখন সব ই -টেন্ডারের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে। তা শুনে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেখবেন,  কাউকে যেন সশরীরে আসতে না হয়। কারণ কিছু কনট্রাকটর অনেক রকম কাজ করে। সেটা যেন না হয়। ‘এদিন নতুনভাবে সংস্কার হওয়া কৃষ্ণনগর সার্কিট হাউসের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে কিছু কোল্ড স্টোরেজের প্রয়োজন আছে। চাষীদের মিউটেশন নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। এগুলো দেখতে হবে। ‘কিষাণ মান্ডি গুলি এখন কী  অবস্থায় রয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী তারও খোঁজ নেন।

এদিন নাকাশিপাড়ার বিধায়ক কল্লোল খাঁ মুখ্যমন্ত্রীকে ট্রপিকাল অর্কিড উপহার দেন। তা দেখে ভীষণ উৎসাহিত হয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘এই ট্রপিকাল অর্কিড বাইরে এক্সপোর্ট করা যায় কিনা,  সেটা দেখতে হবে l এই অর্কিড এক মাস থাকে। সব জেলায় এটা করা যায় কিনা দেখুন। হর্টিকালচারকে কাজে লাগান। রাজ্যের ট্রেনিং ক্যাম্প করুন। প্রতিটি জেলা থেকে দশ-বারো জন ওই ট্রেনিং নেবেন।’

এছাড়া জৈব সারের মাধ্যমে সবজি উৎপাদন, কচুরিপানার ব্যবহার ইত্যাদির বিষয়ে ভীষণ উৎসাহ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। দুর্ঘটনা কমাতে পথ বন্ধু স্কিম চালু করার ওপর গুরুত্ব দেন মুখ্যমন্ত্রী।

তিনি জানতে চান, পথ বন্ধু স্কিম কজন জানেন। এরপর সেই স্কিম ব্যাখ্যা করে বলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পথ বন্ধুদের মাধ্যমে দুর্ঘটনার কবলে পড়া মানুষকে হাসপাতালে পৌঁছে  দেবার ব্যবস্থা করা হয়। এই জেলাতেও পথ বন্ধু স্কিম চালু করুনl’ পুলিশকে নাকা চেকিং কম্পালসারি করার জন্য নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী l

তিনি বলেন, ‘পুলিশ, প্রেসের স্টিকার লাগিয়ে, অ্যাম্বুলেন্সের স্টিকার লাগিয়ে অনেকেই অপরাধ করে বেড়াচ্ছেন। প্রতিটি থানাতেই নাকা চেকিং বাড়াতে হবে। তবে যেন  মানুষের কোন হ্যারাসমেন্ট না হয়।’ 

এছাড়াও চেক করুন

ব্রাউন সুগার পাচারের অভিযোগে দুই কলেজ পড়ুয়াকে গ্রেফতার করল ইংরেজবাজার থানার পুলিশ

মালদাঃ বেআইনি ব্রাউন সুগার পাচারের অভিযোগে দুই কলেজ পড়ুয়াকে গ্রেফতার করল ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। তাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published.