Breaking News
Home >> Breaking News >> সিএবি বিলের প্রতিবাদে উত্তপ্ত নদিয়ার তেহট্ট ও নাকাশীপাড়া

সিএবি বিলের প্রতিবাদে উত্তপ্ত নদিয়ার তেহট্ট ও নাকাশীপাড়া

স্টিং নিউজ সার্ভিস, নদিয়াঃ হাওড়া এবং মুর্শিদাবাদ এর পর এবার আঁচ পড়ল নদিয়াতেও। হাওড়ার উলুবেড়িয়া বা মুর্শিদাবাদ এর বেলডাঙ্গার মতো না হলেও সিএবি বিলের প্রতিবাদে প্রবল বিক্ষোভ সংগঠিত হল, নদিয়ার তেহট্ট ও নাকাশীপাড়া থানা এলাকায়। তেহট্টের মালিয়াপোতা এলাকা থেকে শুরু করে নাকাশীপাড়ার মোটা ও বড়গাছি এলাকায় বিক্ষোকারীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান।

পাশাপাশি তেহট্টের মালিয়াপোতা এলাকায় বেশকিছু দোকান ভাঙ্গচুরের অভিযোগ ওঠে বিক্ষোকারীদের বিরুদ্ধে। যদিও দোকান ভাঙচুরের অভিজি উড়িয়ে দেয় বিক্ষোভকারী জনতা। এনআরসি ও সিএবি বিল কে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়ে তিনটি জায়গায় রাস্তায় টায়ার ও এনআরসি ও সিএবি বিলের অনুলিপি পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখালেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ।

সেখানে সংখ্যালঘু মানুষজনের পাশাপাশি প্রচুর সংখ্যক হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষকেও এদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে সামিল হতে দেখা যায়। প্রথমে নাকাশীপাড়া থানার মোটা ও বড়গাছিতে সিএবি বিলের প্রতিবাদে মিছিল করে জনতা। এরপর জনবহুল রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে এবং বিলের অনুলিপি পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখায় অসংখ্য সংখ্যালঘু জনতা। সিএবি বিলের প্রতিবাদে সংখ্যালঘু মানুষজনের পাশাপাশি প্রচুর সংখ্যক হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষকেও সামিল হতে দেখা যায়।

বিক্ষোভের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় নাকাশীপাড়া থানার পুলিশ। উত্তীজিত বিক্ষোভকারীদের শান্ত করার একটা ক্ষীণ প্রচেষ্টা চালায় পুলিশ। যদিও পুলিশের এই প্রচেষ্টা কোনও কাজে আসেনি। বিক্ষোভকারীরা মোটা ও বড়গাছি দুটি এলাকার প্রধান রাস্তা দখল নেয়। দীর্ঘক্ষণ রাস্তা জুড়ে দাপিয়ে বেড়ায় বিক্ষোভকারীরা। শেষমেষ বিকেলের দিকে পুলিশের অনুরোধে বিক্ষোভ অভিযান এদিনের মতো তুলে নেয় বিক্ষোভকারী জনতা। ইনসান হুসেন শেখ নামে এক বিক্ষোভকারী জনতা বলেন, এই বিল আমরা মানিনা। কেন্দ্র সরকার ধর্মের নামে দুই ধর্মের মানুষের মধ্যে বিভেদ ঘটাতে চাইছে। আমরা সর্ব শক্তি দিয়ে এই বিল রুখব। একথা বলে আওয়াজ তোলে বিক্ষোভকারী কয়েক হাজার জনতা।

উল্লেখ্য থাকে যে, শুক্রবারও সিএবি বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিল করে নাকাশীপাড়ার বীরপুরের প্রায় হাজার পাঁচেক সংখ্যালঘু মানুষজন। সিএবি বা ক্যাব প্রত্যাহারের দাবিতে মৌন মিছিল করেন সেখানকার জনতা।

সেদিনও বিক্ষোভকারী জনতার হাতে ছিল জাতীয় পতাকা সহ এনআরসি, ক্যাব ও এন আর পি প্রত্যাহার লেখা প্লাকার্ড। এক বিক্ষোভকারী বীরপুরের বাসিন্দা রহমতুল্লা মন্ডল তীব্র ভাষায় কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ভারতবর্ষের মতো একটি ধর্ম নিরপক্ষ দেশে এই আইন কার্যত ধর্মীয় মেরুকরনের একটা স্পষ্ট বার্তা দিতে চাইছে কেন্দ্র।

এছাড়াও চেক করুন

মদ্যপ অবস্থায় ড্রাইভিং না করার পরামর্শ দেন পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও

নরেশ ভকত, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, বাঁকুড়া: কমবয়সী যুবকদের মদ্যপ অবস্থায় মোটর বাইক চালানোর প্রবনতা বেড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.