Breaking News
Home >> Breaking News >> দুপুর গড়াতেই ক্ষিপ্ত হনুমানের তান্ডব নবদ্বীপে

দুপুর গড়াতেই ক্ষিপ্ত হনুমানের তান্ডব নবদ্বীপে

স্টিং নিউজ সার্ভিস, নবদ্বীপ, নদিয়াঃ দুপুর গড়াতেই ক্ষিপ্ত হনুমানের তান্ডবের জেরে ত্রস্ত হয়ে উঠছেন নবদ্বীপের দক্ষিণাঞ্চলের একাংশের বাসিন্দারা। যা চলছে সন্ধ্যা পর্যন্ত। ক্ষিপ্ত হনুমানের আক্রমণে এপর্যন্ত কমবেশি দুই মহিলা সহ তিনজন আহত হয়েছেন। তাদের কে চিকিৎসার জন্য নবদ্বীপ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সম্প্রতি তারা হাসপাতাল থেকে চিকিৎসার পর বাড়িতে ফিরলেও আতঙ্কের জেরে ঘর থেকে বের হতে পারছেন না।

বন দপ্তরের কাছে বিষয়টি জানালেও তারা কোনও রকম ব্যবস্থা না নেওয়ায়, অবশেষে নবদ্বীপ থানার পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা। একাধিক বাসিন্দার দাবি, বন দপ্তর কে হনুমানের তান্ডবের বিষয়টি জানালে, ওরা একটি জাল পেতে চলে যায়। কিন্তু ওই জাল জালের মতোই পরে থাকে। হনুমান বাবাজি জালের ধারে কাছেও আসেনি।

নবদ্বীপ পৌরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডের তেঘড়িপাড়া অঞ্চলের ঝাপানতলা ও নবদ্বীপ ধাম স্টেশনের কাছে ভট্ট পাড়ায় দীর্ঘদিন ধরে হনুমানের তান্ডবের জেরে আতঙ্কিত সেখানকার বাসিন্দারা। চলতি বছরের নভেম্বরের মাঝামাঝি শুরু হয় একটি প্রকান্ড হনুমানের তান্ডব। স্থানীয় যুবক শুভাশীষ বাগ জানান, বিগত এক বছর থেকে এলাকায় তান্ডব চালাচ্ছে এক প্রকান্ড পুরুষ হনুমান। সম্প্রতি মিনু দে এবং দীপালি বর্মন ও গনা হাজরা নামক ব্যক্তিকে আক্রমণ করে ওই ক্ষিপ্ত হনুমান। যার জেরে বছর পঞ্চাশের মিনু দেবী গুরুতর আহত হন। তাকে পরিবারের লোকেরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে নবদ্বীপ হাসপাতালে ভর্তি করে।

পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানতে পারা যায়, ক্ষিপ্ত হনুমানের আক্রমণে মিনুদেবীর একটি পা ভেঙে যায়। অপরদিকে দীপালি দেবীকে এমনভাবে হনুমানটি আক্রমন করে যে, তার সারা শরীর ক্ষতবিক্ষত হয়। ক্ষিপ্ত হনুমানের আক্রমণে গুরুতর আহত দীপালি দেবী এতটাই আতঙ্কে রয়েছেন যে, চিকিৎসা করাতে হাসপাতালে যেতে ভয় পাচ্ছেন তিনি।

স্থানীয় যুবক সমীর দে বলেন, গত বছর ডিসেম্বর মাসে একই হনুমানের আক্রমণের স্বীকার হয়েছিলেন, এলাকার দুই ব্যক্তি। প্রদীপ ঘোষ ও পরেশ জান নামক দুই ব্যক্তিকে এমনভাবে আক্রমণ করে ওই ক্ষিপ্ত হনুমানটি , যার ফলে প্রদীপ ঘোষ ও পরেশ জান দীর্ঘ চিকিৎসার পর কিছুটা সুস্থ হন। সুস্থ হলেও মেরুদণ্ডের আঘাতে বর্তমানে পরেশ বাবুকে চলতে হচ্ছে লাঠির সাহায্যে।

বনদপ্তরের কৃষ্ণনগর রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার বিকাশ বিশ্বাসকে ক্ষিপ্ত হনুমানের তান্ডবের বিষয়টি জানাতে ফোন করা হলে তিনি জানান, খুব শীঘ্রই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রবিবার সেখানে একটি খাঁচা পাতা হবে। সাতদিন দেখার পর যদি কোনও কাজ না হয় তাহলে, ঘুমপাড়ানি বন্দুকের সাহায্য নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এছাড়াও চেক করুন

মদ্যপ অবস্থায় ড্রাইভিং না করার পরামর্শ দেন পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও

নরেশ ভকত, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, বাঁকুড়া: কমবয়সী যুবকদের মদ্যপ অবস্থায় মোটর বাইক চালানোর প্রবনতা বেড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.