Breaking News
Home >> Breaking News >> বক্সিরহাটে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত, বিডিও সহ ৫ পুলিশ কর্মী নিগৃহীত, আটক ৫

বক্সিরহাটে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত, বিডিও সহ ৫ পুলিশ কর্মী নিগৃহীত, আটক ৫

মনিরুল হক, স্টিং নিউজ, কোচবিহারঃ তৃনমূলের পঞ্চায়েত প্রধান গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে ঢোকাকে কেন্দ্র করে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তেজনা ছড়াল তুফানগঞ্জে। ওই ঘটনায় জেরে পুলিশ ও বিডিওর গাড়িতে ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ।

ঘটনাটি ঘটেছে তুফানগঞ্জ ২ নং ব্লকের বক্সিরহাটের মহিশকুচি গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ের সম্মুখে। ওই ঘটনায় পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোড়া হয় বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটায় পুলিশ। ঘটনায় পাঁচজন পুলিশ কর্মী আহত হয়েছেন। পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনায় তৃণমূল ও বিজেপি একে অপরের উপর অভিযোগের আঙুল তুলেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী ও র্যা ফ মোতায়েন করা রয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

তৃণমূলের অভিযোগ, মহিশকুচি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সহ পঞ্চায়েত সদস্যরা গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে প্রবেশ করতে গেলে বিজেপি কর্মীরা তাঁদের বাধা দেয় বলে অভিযোগ। সেই সময় দুই পক্ষের সংঘর্ষ বাধে। পাথর বৃষ্টি হয় বলে বলে অভিযোগ। বক্সিরহাট থানার পুলিশ সহ র্যা্ফ মোতায়েন ছিল আগে থেকেই। তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে তাদের ওপরও আক্রমণ করা হয় বলে অভিযোগ। সেই সময় বিডিও-র ওপরও আক্রমণ করা হয়।

এই বিষয়ে তুফানগঞ্জ-২নং ব্লকের বিডিও ভগীরথ হালদার জানান, “মহিশকুচি গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে ঢুকতে গেলে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে কিছু দুষ্কৃতী সেখানে দাঁড়িয়ে ছিল। যদিও তাদের হাতে বিজেপির দলীয় পতাকা ছিল। তারাই আমাকে শারীরিকভাবে নিগ্রহ করেছে। আমি অসুস্থ বোধ করছি। এমনকি তাঁর গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়।” আক্রান্ত বিডিও চিকিৎসার জন্য স্থানীয় চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে গেছেন বলে জানিয়েছেন।

এই বিষয়ে তুফানগঞ্জ বিধানসভার বিজেপির সংযোজক উৎপল দাস বলেন, লোকসভার পর থেকে তুফানগঞ্জ এলাকার শান্ত পরিবেশকে অশান্ত করতে তৃণমূল কংগ্রেস সন্ত্রাস ও বোমাবাজি করছে। আজকে তারাই মহিশকুচি গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ের সামনে বোমাবাজি করে অশান্ত করেছে।

যদিও বিজেপির তোলা অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব। তুফানগঞ্জ-২ নং ব্লকের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সুরেশ চন্দ্র বর্মন বলেন, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা অসম থেকে ভাড়া করে এনে মহিষকুচি এলাকায় তাণ্ডব চালানোর জন্য। স্থানীয় বিজেপি কর্মীরা ও ভাড়া করে আনা দুষ্কৃতীরা বোমাবাজি করেছে। এবং পুলিশ ও বিডিওর গাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে তারাই।

এছাড়াও চেক করুন

মদ্যপ অবস্থায় ড্রাইভিং না করার পরামর্শ দেন পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও

নরেশ ভকত, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, বাঁকুড়া: কমবয়সী যুবকদের মদ্যপ অবস্থায় মোটর বাইক চালানোর প্রবনতা বেড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.