Breaking News
Home >> Breaking News >> জীবনের রংমশাল

জীবনের রংমশাল

ঋদ্ধি ভট্টাচার্য, স্টিং নিউজ, কলকাতা: ছোটবেলা থেকেই অনেকের সংগ্রহ করা একটি সখ হিসেবে বলাই যায়। বেশিরভাগের এই সংগ্রহ শুরু হয় ডাক টিকিট বা বিভিন্ন দেশের মুদ্রা দিয়ে। কিন্তু শুধুই কি এই ডাক টিকিট বা মুদ্রাই একমাত্র উপায় সংগ্রহের। যারা ভাবে তাদের ভুল এটা।

সেই ব্যাপারের প্রমান দিতে এইরকম হরেক জিনিসের সময়-এর সূচনায় তার পরিবর্তন-এর উপর একটি বিশাল প্রদর্শনী হয় গেলো সম্প্রতি কলকাতার রোটারি সদনে। কলকাতা ইনার উহীল-এর আয়োজিত এই অনুষ্ঠান মন কেড়েছে সমস্ত দর্শকদের এবং অনেক কচি কাঁচাদের। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ইনার উহীল ক্লাবের প্রেসিডেন্ট শ্রীমতি মীনা বসু এবং এছাড়াও উপস্থিত থাকেন শাহেনশাহ মির্জা,মহেশ কালরা,রুচির গুপ্ত এবং জি.এম.কাপুর।

ভবিষ্যতের প্রজন্মের কাছে আস্তে আস্তে হারিয়ে যাওয়া এই সংগ্রহে ব্যাপার জানো নিশ্চিহ্ন হতে চলেছে। এইবারের প্রদর্শনীতে মূলত ছিল হরেক রকম জিনিস। প্রথমেই আসা যাক ঈশিতা বসু রয়-এর কোথায়। তাঁর সংগ্রহের মধ্যে মূলত প্রদর্শন হয় পুরোনোকাল দিনে যে সমস্ত গয়না বানানো হয়েছে সেই সব গুলোর সাথে যে বিড ব্যবহার করা হতো বিভিন্ন সভ্যতার সময় যার মধ্যে ছিল আড়াই হাজার বছরের পুরনো সভ্যতার কিছু বিড যা তিনি যোগাড় করেছেন নর্মদা নদীর অঞ্চলের থেকে। এছাড়াও প্রধান আকর্ষণ করেছে সৌভিক রায়। তিনি ছিলেন এবারের প্রধান মুখ। তিনি করেছিলেন বিভিন্ন ধরণের বিজ্ঞাপন-এর উপর। মূলত দর্শকদের কাছে তিনি তুলে ধরেছেন ১৯১৯-২০১৯-এর মধ্যে বিজ্ঞাপনের পরিবর্তন। এর মধ্যে ছিল গত ১০০ বছরের তেলের, বরোলিন, হরলিক্স এর বিজ্ঞাপনের পরিবর্তন বিভিন্ন নিউজ পেপার কাটটিং। এই সমস্ত কিছুর মধ্যে বোরোলিন-এর একটি বিজ্ঞাপন নজর করেছে অনেকের। ১৫-ওই আগস্ট ১৯৪৭ স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বোরোলিন এক লক্ষ পিস দেওয়া হয় সমস্ত মানুষের মধ্যে কোনো দক্ষিনা ছাড়াই।

সেই তার বিজ্ঞাপনও ছিল এখানে। শুধু এখানেই শেষ নয় ছিল স্বর্ণ যুগের থেকে এখনকার সময়-এর বেশ কিছু সিনেমার পোস্টার। মূলত সেখানে দেখানো হয়েছে কি ভাবে আগে হাতে করে বানানো হত এই পোস্টার এবং পরে তা বিভিন্ন ব্লকের সাহায্যে যা পরে পাল্টে যায় কিছু হাতের সাহায্যে এবং কিছুটা ব্লকের সাহায্যে। এবং সর্বশেষ গ্রাফিক্স-এর নমুনায় বানানো হয় এই জিনিস। এই পরিবর্তন-এর সংগ্রহ দেখে মাথা ঘুরে গেছে অনেকের। এইগুলো ছাড়াও ছিল সময়কে নীলকণ্ঠের মতন ধরে রাখার কিছু পরিবর্তন। হ্যাঁ ঠিক তাই। আজ থেকে শতবর্ষ আগে মূলত ব্যবহার হত গ্রামোফোনের রেকর্ডিং যা বদলে হলো ক্যাসেট এবং এখন তা তাল মিলিয়ে চলে এসেছে পেন ড্রাইভ রূপে। এই গ্রামোফোন-এর রেকর্ডিং-এর মধ্যে ছিল নেতাজির এবং গান্ধীজির নিজের কণ্ঠের একটি করে রেকর্ড যা সেই সময়তে নষ্ট করে দিয়েছিল ব্রিটিশ সরকার। আগেকার দিনে বই বা কাগজ মুদ্রিত করতে গেলে লাগতো ব্লকের দিরকার। সেই ব্লকের মধ্যেই লেখা থাকতো সমস্ত ধরণের অক্ষর কিংবা ছবি। সেই সমস্ত দুষ্প্রাপ্য সব সেকালের ব্লক নিয়ে হাজির হয়েছিলেন সৌমেন নাথ। এছাড়াও তিনি
পুরোনো সমস্ত কালি রাখার পাত্রর বিবর্তনের রূপ ফুটিয়ে তুলেছেন। কলকাতার প্রবাদপ্রতিম সংগ্রহকার শ্রী পরিমল রায়-এর “এমব্রয়ডারি” উপর সংগ্রহ ছিল সত্যি দেখার মতন। কলকাতার জিষ্ণু বসুর সংগ্রহে ছিল আন্তর্জাতিক সমস্ত বিমানের মডেল।

হয়তো শুনতে একটু অন্যরকম লাগে কিন্তু সমস্ত বিমান বানানোর আগে তার মিনিয়েচার মডেল বানিয়ে থাকে সবাই। সেই সব দুর্লভ পুরোনো মডেল থেকে শুরু করে নতুন ফ্লাইট-এর মডেল দিয়ে অনেকের মনে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। সর্বশেষ দেখার মতন আরেকটি ছিল হওয়ার বাসিন্দা শ্রী সৌভিক মুখার্জীর। তিনি মূলত দেখিয়েছেন হওয়া রুটের সমস্ত ধরণের ট্রাম-এর টিকিটের উপর সংগ্রহ এবং সময়ের সাথে সাথে তার পরিবর্তনের ছোয়া। মানুষ হয়তো পরিবর্তিত হয় সময়ের সাথে সাথে আর ঠিক সেই ভাবেই পরিবর্তন হয় তার ব্যবহার করা সামগ্রী ও আসবাবপত্র। এছাড়াও মুদ্রার উপর প্রদর্শন করে শ্রী রবি শঙ্কর শর্মা এবং সৌভিক মজুমদার সহ আরো অনেকে। কিন্তু সময়ের নিলকণ্ঠের মধ্যে ধরে রাখা যায় এমন সব অমূল্য সংগ্রহের জিনিসপত্র।

এছাড়াও চেক করুন

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে আত্মহত্যা করলেন এক স্কুল শিক্ষক

বিশ্বজিৎ মন্ডল, স্টিং নিউজ, মালদাঃ পারিবারিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.