Breaking News
Home >> Breaking News >> ট্যাগহীন গাড়ির পিছনে আটকা পড়ছে ফাস্ট্যাগ লোগো লাগানো গাড়ি

ট্যাগহীন গাড়ির পিছনে আটকা পড়ছে ফাস্ট্যাগ লোগো লাগানো গাড়ি

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়া: টোল প্লাজায় গাড়ির টাকা মেটানোর ঝক্কি থেকে মুক্তি পাবার দিশা ফাস্ট্যাগ। গাড়ি না থামিয়েই টোল মিটিয়ে এগিয়ে যাবার আগে গাড়ির উইন্ডস্ক্রিনে লাগাতে হচ্ছে ফাস্ট্যাগ। কিন্তু তার আগে দ্বিধা বিভক্ত ছোট গাড়ি চালকরা। বোঝার দক্ষতা না থাকায় ফাস্ট্যাগ করানো হয়নি। তবে সুখবর দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ১ডিসেম্বর থেকে বাড়িয়ে ১৫ ডিসেম্বর করা হয়েছে। এরমধ্যে গাড়ির কাঁচে লাগাতে হবে ফাস্ট্যাগ। ইতিমধ্যে যারা ফাস্ট্যাগ লোগো লাগিয়েছেন ট্যাগহীন গাড়ির পিছনে আটকা পড়ছেন।

পশ্চিমবঙ্গে মোট ১৫টি টোল প্লাজ়া রয়েছে যারমধ্যে হাওড়া শহরে তিনটি। ধূলাগোড়, দ্বিতীয় হুগলি সেতুর টোল প্লাজা এবং নিবেদিতা সেতুর উপর বালির রাজচন্দ্রপুর টোল প্লাজা। দেশের মধ্যে ব্যস্ততার নিরিখে বালির রাজচন্দ্রপুর টোল প্লাজা অন্যতম। টোল প্লাজায় যানবাহন দীর্ঘ লাইনে না পড়তে হয় এ কারণে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সঙ্গে এ রাজ্যেও শুরু হয়েছে ফাস্ট্যাগের মাধ্যমে টোল সংগ্রহ করা। নিবেদিতা সেতুর উপরে বালির রাজচন্দ্রপুর টোল প্লাজায় প্রায় সময় জ্যাম থাকে। রাত বাড়লে লম্বা হয় জ্যাম। মূলত লরির লাইন পড়ে বেশি। ফাস্ট্যাগে কতটা উপকৃত হবে প্রশ্ন শুনে লরি চালকদের জবাব, টোল প্লাজ়ায় নগদের কারণে লাইন হয়। এটা হলে ভালো তো হবেই। পাশাপাশি সমস্যা যে সম্পূর্ণ মিটবে এমনটা ভাবাও ভুল।

তাঁদের প্রশ্ন, ফাস্ট্যাগের পছন্দের দামের ট্যাগ মিলছে না। যেগুলো রয়েছে সেগুলোই দেওয়া হচ্ছে। ফাস্ট্যাগের লোগো থাকলে সমস্যা না হলেও ট্যাগহীন গাড়ি লেনে ঢুকে পড়ে সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। সব গাড়িতে না হলে সমস্যা এখন থাকবে। সমস্যার পাশাপাশি সুবিধাও ঢের। কি ধরণের সুবিধা মিলতে চলেছে। টোল প্লাজার কর্মীদের কথায়, রাতের দিকে শহর কলকাতায় ঢোকে লরি। মূলত ৫০০ এবং ২ হাজার টাকার নোট দেয়। সবসময় তো খুচরো থাকে না। যে কারণে সময় লেগে যায় বিস্তর। এবার সেই সমস্যা থেকে মুক্তি। গড়াতে থাকা গাড়ি অনায়াসে ফাস্ট্যাগের মাধ্যমে টোল মিটিয়ে এগিয়ে যাবে। দ্রুত হবে যান চলাচল। একি সঙ্গে ফাস্ট্যাগের মাধ্যমে গাড়ির তথ্য মজুত হবে সরকারি দপ্তরে।
ফাস্ট্যাগের দক্ষ কর্মীদের কথায়, হাওড়া শহরের তিনটি টোল প্লাজায় ফাস্ট্যাগের লোগো লাগানো রয়েছে। একি ফ্লেক্সে ক্যাশ লেখাও রয়েছে। গাড়ির চালক বা মালিকদের মধ্যে খটকা রয়েছে পরবর্তী সময় রিচারজ করানো নিয়ে। বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে। চালু হলে সমস্যা দূর হবে বলেই মত। তবে পুরনো গাড়ির মালিকদের ফাস্ট্যাগে সমস্যার কিছু খবর মিলছে সেটা দেখছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিদিন যে পরিমাণে গাড়ি যাতায়াত করছে প্রায় অর্ধেকের কাছাকাছি লরি ও দূরপাল্লার গাড়ি ফাস্ট্যাগের আওতায় চলে এসেছে। আগামী দিনে বাকি গাড়ি চলে আসবে আওতায়।

এছাড়াও চেক করুন

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে আত্মহত্যা করলেন এক স্কুল শিক্ষক

বিশ্বজিৎ মন্ডল, স্টিং নিউজ, মালদাঃ পারিবারিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.