Breaking News
Home >> Breaking News >> শৌচাগার দিবসে সুস্থ পরিবেশ গড়তে একজোট স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী ও প্রশাসন

শৌচাগার দিবসে সুস্থ পরিবেশ গড়তে একজোট স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী ও প্রশাসন

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়াঃ খাবার আগে পরিস্কার করে হাত ধোওয়া। শৌচকর্মের পর নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিস্কার করে নেবেন। সুস্থ ও পরিচ্ছন্ন থাকতে খাবার আগে ও শৌচকর্মের পর হাত ধুলে গুচ্ছ রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। এমনটাই জানাচ্ছেন চিকিৎসকদের একাংশ।

১৯ নভেম্বর ছিল বিশ্ব শৌচাগার দিবস। বছর খানেক আগে এই দিনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক বার্তায় বলেছিলেন, বিশ্ব শৌচাগার দিবসে আমরা সারা দেশ জুড়ে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা এবং শৌচালয়ের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমাদের অঙ্গিকারের কথা পুনরায় ব্যক্ত করি। প্রধানমন্ত্রী সেদিনের বক্তব্য কে সামনে রেখে বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছিল পরিচ্ছন্নতার পাঠ দেওয়া। পরবর্তী সময় প্রধানমন্ত্রী জানান, বিগত চার বছরে ভারতে যে লক্ষ্যণীয় গতিতে শৌচালয়ের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি পেয়েছে, তারজন্য আমরা গর্বিত।

জেলা ছাড়িয়ে গ্রামের প্রান্তে শৌচাগার ব্যবহার কতটা বেড়েছে। এই বিষয় স্বাস্থ্য দফতরের এক আধিকারিকের কথায়, খোলা জায়গায় মলত্যাগ ও শৌচকর্ম যে বন্ধ হয়ে গিয়েছে তা কিন্তু বলা যায় না। এখনও গ্রামের বহু প্রান্তে সকালে খোলা জায়গায় মলত্যাগ করা হয়। বাড়িতে শৌচাগার থাকলেও মাঠে, নদীর পাড়ে মলত্যাগ ও শৌচকর্ম করে। সচেতনতার পাঠ পড়ালেও মানুষের মধ্যে অভ্যাস বদলের সদিচ্ছা না থাকার কারণে এমনটা ঘটছে। তথ্য বলছে শিশুদের মৃত্যু হয় অস্বাস্থ্যকর পয়ঃপ্রণালীর কারণে। এসবের থেকে মুক্তি পেতে জরুরি ‘শৌচাগার দিবস’ পালন করা। প্রকৃতির ডাকে মানুষকে সাড়া দিতেই হবে। তবে তা কখনওই প্রকাশ্যে নয়। ব্যবহার করতে হবে বাড়িতে লাগানো ‘শৌচাগার’ অথবা ‘সুলভ শৌচালয়’।

জেলার প্রশাসনিক কর্তাদের কথায়, গ্রাম বাংলার মানুষের কাছ থেকে আবেদন পত্র আসলেই শৌচালয় দেবার ব্যবস্থা করার নিদান রয়েছে। অনেক সময় দেখা গিয়েছে বিডিও এবং অন্যান্য জন প্রতিনিধিরা মাঠে পৌঁছে গিয়েছেন। গ্রামবাসীদের ‘শৌচালয়’ ব্যবহার বিষয় বুঝিয়েছেন। গার্হস্থ্য জীবনে প্রতিটি বস্তুর মতো ‘শৌচালয়’ রাখা জরুরী। পরিবারের সম্মান এবং পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য শৌচালয়ের বিকল্প কিছু নেই। হাওড়া জেলার গ্রামের দিকে বিভিন্ন এলাকায় দেখা মিলছে মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পে আমতা-২ পঞ্চায়েত সমিতি ও ব্লক সমিতি রাস্তার ধারে দেওয়াল জুড়ে রঙিন চিত্র তুলে ধরেছেন। লেখা রয়েছে স্বাস্থ্য সচেতনতার কথাবার্তা। ‘সর্বদা শৌচালয়ের ব্যবহার নীরোগ থাকে প্রত্যেক পরিবার’। কোথাও লেখা ‘বাড়িতে থাকুক সারগর্ত রোগ দূরে থাক শতহস্ত’। এর উদ্দেশ্য গ্রামকে স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন রাখা জানান আমতা-২ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সুকান্ত পাল।

অন্যদিকে বিশ্ব শৌচাগার দিবস উদযাপনে অভিনবত্ব তুলে ধরেছে সাগর এলাকার চৌরঙ্গী অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়। শিক্ষক তাপস মন্ডল জানান, শৌচাগার ব্যবহার করতে হবে, পুরো পরিবার থাকবে সুরক্ষিত। মাঠে ঘাটে নয় আর,শুধু শৌচাগার ই করবো সবাই ব্যবহার। শৌচালয় ব্যবহার হারের ফলে ও ব্যবহার করা স্বাস্থ্যের পক্ষে নিরাপদ আর পরিস্কার রাখাও সহজ। শিশুদের মল ও শৌচাগারে ফেলুন। শৌচালয় ব্যবহার করলে সাপখোপ ও পোকামাকড় থেকে নিরাপদে থাকুন। শৌচালয় মা-বোনেদের আব্রু রক্ষা করে। শৌচালয় ব্যবহার করর আগে এক মগ জল ঢেলে দিন। পায়ে চটি পরে শৌচালয় ব্যবহার করুন। ব্যবহারের পর সাবান দিয়ে ভালো করে হাত ধুয়ে দিন। পরিস্কার হাতে এক বালতি জল ঢেলেদিন শৌচাগার আবার ব্যবহারের জন্য। স্বাস্থ্য বিধান মানলে নির্মল হবে বাংলা ও স্বচ্ছ হবে ভারত।

এছাড়াও চেক করুন

সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে আত্মহত্যা করলেন এক স্কুল শিক্ষক

বিশ্বজিৎ মন্ডল, স্টিং নিউজ, মালদাঃ পারিবারিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.