Breaking News
Home >> Breaking News >> লোকসভায় কোচবিহারে সীমান্ত এলাকায় বিজেপির বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় বাহিনী ব্যবহার করার অভিযোগ মমতার

লোকসভায় কোচবিহারে সীমান্ত এলাকায় বিজেপির বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় বাহিনী ব্যবহার করার অভিযোগ মমতার

মনিরুল হক, স্টিং নিউজ, কোচবিহারঃ “কোচবিহারের সীমান্ত এলাকায় রাতের অন্ধকারে কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে অপারেশন করা হয়েছে। টাকা বিলিয়ে ভোট কেনা হয়েছে। গুন্ডামি করে ভোটে জিতেছে বিজেপি।”

সোমবার কোচবিহার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে বিজেপির বিরুদ্ধে এভাবেই তোপ দাগলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমি মনে করি না যে কোচবিহারে তৃণমূল কংগ্রেস হেরেছে। এখানে গুন্ডামি করে বিজেপি জিতেছে।

পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ৩৪ বছরে সিপিএম এ রাজ্যে রাজত্ব করেছে, কিন্তু কোচবিহারের কোন উন্নয়ন হয়নি। সরকার কোচবিহারের দিকে ফিরেও তাকায় নি। এরাজ্যে তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর এই কোচবিহারে শিক্ষা-স্বাস্থ্য থেকে শুরু করে সমস্ত দিক দিয়েই উন্নয়ন ঘটেছে।
তিনি আরও বলেন কোচবিহারবাসীদের সব দাবি দাবাই তিনি পুরন করেছেন। অসমের এনআরসি প্রসঙ্গ টেনে তিনি তোপ দাগেন মোদী সরকারকে। কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে আক্রমন করে বলেন,“বিজেপির ভুয়ো কথায় কান দেবেন না। পাশাপাশি সিপিএম-কংগ্রেস-বিজেপিকে জগাই-মাধাই-গদাই বলে আখ্যা দেন তিনি।

এদিন কোচবিহারে নেতাজী ইনডোর স্টেডিয়াম থেকে সরাসরি গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশে তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,
এখান থেকেই তিনি মুর্শিদাবাদ এবং মালদা যাবেন। পাশাপাশি বাম-কংগ্রেসকেও তীব্র কটাক্ষ করেন তিনি। ছিটমহলের পাশাপাশি এনআরসি’র প্রসঙ্গেও মুখ খুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, ‘আমি মনে করি না হেরেছি। বিজেপি এখানে গুণ্ডামি করে জিতেছে। এখানকার মানুষ গুণ্ডামি বরদাস্ত করবে না। তিন দলকেই বাংলা থেকে মানুষ বিদায় করবে।’

কোচবিহারে রাজবাড়ি স্টেডিয়ামের মাঠে নেমে কর্মী সভায় বক্তব্য রেখে তিনি বললেন, “কোচবিহারে আমি যা উন্নয়ন করেছি তা আর কোন সরকার করেনি। আগে ৩৪ বছরের সরকার কোনদিন ফিরে তাকায়নি কোচবিহারের দিকে। আমি ভোরের আলো, জলপাইগুড়ি সার্কিট হাউস বানিয়েছি। ছিট মহলের সমস্যার সমাধান করেছি। আমি সব করেছি। কিন্তু তা সত্ত্বেও অনেকে মাথা নত করেছে অপপ্রচারের কাছে, তাতে আমার খারাপ লেগেছে।” কোচবিহারে এসে দলীয় কর্মী সভায় যোগ দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন সারাদেশে তৃণমূল কংগ্রেসই একমাত্র দল যার আদর্শ আছে।

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকে আগে বলত টিএমসির আদর্শ নেই। আমি মনে করি সারা ভারতে তৃণমূল কংগ্রেসই একমাত্র দল যার আদর্শ আছে। আমরা সবার পাশে আছি। আমি সব ধর্মের উৎসবই করি। সবটা করার নামই ধর্ম।

এদিন কোচবিহার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে তৃণমূলের এক কর্মীসভায় বক্তব্য রাখেন মুখ্যমন্ত্রী। ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মন্ত্রী বিনয় কৃষ্ণ বর্মন, কার্যকরী সভাপতি প্রাক্তন সাংসদ পার্থ প্রতিম রায় প্রমূখ।

কোচবিহার নেতাজী ইনডোর স্টেডিয়ামে কর্মী সভা থেকে বের হয়ে কোচবিহার মদনমোহন মন্দিরে পুজো দিতে জান মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে কোচবিহার রাজ পরিবারের ঐতিহ্যপূর্ণ মদনমোহন ঠাকুরের পুজো দেওয়ার পর মদনমোহন মন্দির চত্বরে রাসচক্র ঘোরান মুখ্যমন্ত্রী। এরপর সেখান থেকে রাস মেলার সাংস্কৃতিক মঞ্চে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর কোচবিহার সফরকে কেন্দ্র করে কোচবিহার শহরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয় এদিন।

এছাড়াও চেক করুন

ফাঁসিদেওয়ার মুণি চা বাগানে গণ বিবাহ অনুষ্ঠানে হাজির পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব

বিশ্বজিৎ সরকার, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, দার্জিলিংঃ শুক্রবার শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়া ব্লকের মুণি চা বাগানে শ্রীহরি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.