Breaking News
Home >> Breaking News >> সাবধান ধেয়ে আসছে লক্ষ কিউসেক জল

সাবধান ধেয়ে আসছে লক্ষ কিউসেক জল

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়াঃ বিহার ও ঝাড়খণ্ডে টানা বৃষ্টির জের ডিভিসির ছাড়া জলে বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে নিম্ন দামোদরের আমতা-২নম্বর ব্লক ও উদয়নারায়নপুর ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকায়। মঙ্গলবার ভোর থেকে দামোদর নদের জল ঢুকে প্লাবিত উদয়নারায়নপুর বিডিও এলাকার অন্তর্গত ২টি পঞ্চায়েতের ৮টি গ্রাম সহ মোট ১২টি গ্রাম। পুজোর আগে কয়েক হাজার হেক্টর জমির ধান নষ্ট হওয়ার সম্মুখীন।

উদয়নারায়নপুর-তারকেশ্বর রাজ্য সড়কে ডিহিভুরসুট যাবার আগে কুড়চি কোল্ড স্টোরেজ সংলগ্ন রাস্তার উপর দিয়ে বন্যার জল বইছে। প্লাবিত হচ্ছে একের পর এক গ্রাম। জল বাড়ার ফলে বাস চলাচল আপাতত ওই রাস্তা দিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। টোকাপুর বাইরা কুড়চি, জিরো পয়েন্ট, খেমপুর, হরিহরপুর, আসন্ডা, খদন, হরাল, ঘোলা, পূর্ব ডিহিভুরসুট, সুলতানপুর সহ একাধিক গ্রামে দামোদরের জলে ঢুকতে শুরু করেছে। উদয়নারায়ণপুর এসবিআই ব্যাংক এর সামনের এলাকা জলমগ্ন। আনন্দময়ী সিনেমা হল সংলগ্ন এল্কাআর দোকানে জল ঢুকতে শুরু করেছে।

উদয়নারায়নপুর বিধানসভার বিধায়ক সমীর পাঁজা জানান, ভোর থেকে উদয়নারায়নপুর ব্লকের দুটি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৮টি গ্রামে জল ঢুকেছে। কুর্চি-শিবপুর পঞ্চায়েত ও আরডিএ (রামপুর-ডিহিভুরসুট-আসন্ডা) গ্রাম পঞ্চায়েত। বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে এলাকার মানুষদের কাছে যাওয়া হচ্ছে। যেহেতু ভোরবেলা থেকে আচমকা জল ঢুকতে শুরু করেছে। দ্রুততার সঙ্গে ত্রাণ শিবির তৈরি করা হচ্ছে। ডিভিসি ১লক্ষ পাঁচ হাজার কিউসেকের কাছাকাছি যে জল টা ছেড়েছে ওটা বিকেলের দিকে ঢুকতে শুরু করবে। কিভাবে সামাল দেওয়া যায় দেখছি। ২৪ ঘন্টা সজাগ রয়েছি।

২০১৭ সালে বন্যার সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমতার বন্যাগ্রস্ত এলাকা ও হাওড়ার উদয়নারায়ণপুরে সফর করেন। তিনি ডিভিসি-এর জল ছাড়ার ঘটনা উদ্বিগ্ন হয়েছিলেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ জেলাশাসক মুক্তা আর্য উদয়নারায়ণপুর বিডিও তে পৌঁছান। বিধায়ক, বিডিও সহ সেচ দপ্তরের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সূত্রের খবর ওই বৈঠকে তিনি দ্রুত ত্রাণ শিবির খুলে নিচু এলাকার মানুষদের ত্রাণ শিবিরে নিয়ে যাবার কথা জানিয়েছেন। বৈঠক সেরে বন্যার্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। এলাকার তত্ত্ব নবান্নে পাঠাবেন এমনটাই সূত্র মারফত জানা গিয়েছে।

কুড়চি এলাকার মানুষদের অভিযোগ, ভোর থেকে বন্যার জল রাস্তা টপকে গ্রামে ঢুকতে থাকে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগাম জানানো হয়নি। বেলা দশটার সময় মাইকে প্রচার করতে থাকে। সতেরো সালের বন্যার সময় টোকাপুর এলাকার ভাঙা অংশ ঠিক মতন বাঁধেনি। জল হুহু করে ঢুকছে। এর আগে প্রচুর বস্তা ভরে রাখা হলেও সব পড়ে রয়েছে। বাঁধের গায়ে দেওয়া হলে জল ঢুকবার সম্ভাবনা কম থাকতো। জিরো পয়েন্ট এলাকা দিয়ে প্রচন্ড গতিতে জল ঢুকে গ্রামের পর গ্রাম ভাসাতে শুরু করেছে।

শুনছি এরপর আরও এক লাখ কিউসেক জল আসছে। যেটা এ দিন বিকালে পৌঁছাবে। পরিস্থিতির কথা ভেবে আতংকিত হয়ে পড়ছি। দুর্গাপুজোর প্যান্ডেল জলের তলায়। উদয়নারায়নপুর এলাকার ব্যবসায়ীদের কথায়, সোমবার সন্ধ্যায় মাইকে ঘোষণা হলে আমরা মালপত্র সরিয়ে নিতাম। তাঁদের আরও অভিযোগ কানা খাল দিয়ে জল পাশ করানো হলে অনেকটা জল বেরিয়ে যেত। এ দিন সকাল থেকে কানা খাল দিয়ে জল পাশ করানো হচ্ছে।

উদয়নারায়ণপুরের বিডিও জয়জিৎ লাহিড়ী বলেন, ২৯টি গ্রামে জল ঢুকেছে। জলের রেশ কম আছে। যে জলটা ছেড়েছে ওটা আসছে। প্রশাসন নজর রাখছে। জেলাশাসক এসে বৈঠক করেছেন। এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

আমতা ২নং ব্লকের ভাটোরা ঘোড়াবেড়িয়া এলাকায় জল ঢুকছে। বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে মুন্ডেশ্বরী নদী। জোয়ারের সময় আরও বেশকিছু গ্রাম জলমগ্ন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। জেলাশাসক পরিদর্শনে আসবার কথা রয়েছে জানালেন আমতা ২নং পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সুকান্ত পাল। আমতা স্পোটিং মাঠ অর্ধেক ডুবে গিয়েছে। বন্দর এলাকার একাধিক বাড়িতে জল ঢুকছে। থলিয়া-বাকসি ক্যানেল দিয়ে হাজার-হাজার কিউসেক জল রূপনারায়ণ নদীতে পড়ছে। জোয়ার আসলে পরিস্থিতি কঠিন হতে পারে। ভবানীপুর, সোনাতলা, বড়দা, বিনলা এলাকার দামোদরের পশ্চিম পাড়ের বাঁধ পরিদর্শনে নেমেছে সেচ দপ্তর।

এছাড়াও চেক করুন

বাঁকুড়ায় শিক্ষ‌কের বা‌ড়ি‌তে চু‌রি

নরেশ ভকত, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, বাঁকুড়াঃ বাঁকুড়া শহরের জুনবেদিয়া বাইপাসের কাছাকাছি পলাশতলা এলাকায় শিক্ষক বৈদ্যনাথ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.