Breaking News
Home >> Breaking News >> গ্রেফতারির খাঁড়া মাথায় নিয়ে রক্ষাকবচের খোঁজে রাজীব! সিবিআই দফতরে তৈরি প্রশ্নমালা

গ্রেফতারির খাঁড়া মাথায় নিয়ে রক্ষাকবচের খোঁজে রাজীব! সিবিআই দফতরে তৈরি প্রশ্নমালা

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়া: শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্ট চিটফান্ড কান্ডে রাজীব কুমারের রক্ষাকবচ নিয়ে রায় ঘোষণার আগে অবধি পরিস্থিতি ছিল রাজীবের অনুকূলে। কিন্তু তারপর থেকে ২৪ ঘণ্টা হতে চলল পরিস্থিতি রাজীবের কাছে ক্রমশ প্রতিকূল হতে চলেছে। সূত্রের খবর রাজীবের গ্রেফতারি সময়ের অপেক্ষা। যদিও তিনি এখন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

রোজভ্যালি ও সারদা সহ একাধিক চিটফান্ড কেলেঙ্কারি সামনে আশায় রাজ্য সরকার যে সিট গঠন করেছিল সেই দলে ছিলেন রাজীব কুমার। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফার ভোটের আগে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার সারদা কেলেঙ্কারি মামলার তদন্ত ভার সিবিআইয়ের হাতে তুলে দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। তদন্ত চলাকালীন একাধিক নেতা-মন্ত্রী গ্রেফতার হন। তাঁদের মধ্যে অনেকে জামিনে মুক্ত হয়ে রাজনীতির মূক স্রোতে ফিরে এসেছেন। জেলের মধ্যে বেশকিছু ‘প্রভাবশালী’ রয়েছেন।

তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যেতে গিয়ে নাম চলে আসে রাজীব কুমারের। চলতি বছর ফেব্রুয়ারি মাস-এর প্রথম সপ্তাহ। তৎকালীন কলকাতার পুলিশ কমিশনার ছিলেন রাজীব কুমার। সিবিআই অফিসারদের একটি দল রাজীবের কলকাতার লাউডন স্ট্রিটের বাসভবনে পৌঁছায়। তারপর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পথে নেমে প্রতিবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জরুরী অবস্থার থেকেও ভয়ঙ্কর বলে অভিযোগ করে মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসে পড়েন। ওই ধর্না মঞ্চে হাজির হন রাজীব কুমার। বিতর্ক ধেয়ে আসে। তিনদিনের মাথায় ধর্না প্রত্যাহার করেন।

তবে, সিবিআই তদন্তের সলতে পাকানো থামিয়ে রাখেনি। কোর্ট এর নির্দেশে পাহাড়ি শহর শিলং-এ রাজীবকে জেরা করা হয়। কলকাতা থেকে কুনাল ঘোষ কে উড়িয়ে নিয়ে এসে মুখোমুখি বসিয়ে প্রশ্ন করা হয়। কুনালের অভিযোগ ছিল, ‘রাজীব কুমারের নেতৃত্বাধীন ‘সিট’ সারদা তদন্তে একপেশে তদন্ত করেছে।’ ২০১৩ সালে গ্রেফতার হন কুনাল ঘোষ। তিন বছর জেলে থাকার পর জামিনে ছাড়া পান। শিলং-এ কুনাল ঘোষ ছিল সিবিআই-এর তুরুপের তাস। মুখোমুখি জেরায় একাধিক অভিযোগ উঠে এসেছে বলে সূত্রের খবর। সেই সমস্ত তথ্য সাজিয়ে তৈরি করা হয়েছে প্রশ্নমালা। সিবিআই দফতরে হাজির হলে সেই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর মিলিয়ে দেখা হবে। সাহায্য না করলে গ্রেফতারের সম্ভাবনা প্রবল।

শুক্রবার হাইকোর্ট রাজীব কুমারের রক্ষাকবচ তুলে নেওয়ায় হেফাজতে নিতে উঠে পড়ে লেগেছে সিবিআই। কিন্তু রাজীব আছেন কোথায়। শুক্রবার রাত থেকেই চলছে তল্লাশি অভিযান। সম্ভাবনা রয়েছে এমন একাধিক জায়গায় চিরুনি তল্লাশি চালানো হচ্ছে বলে সূত্রের খবর। দেখা মাত্র-ই গ্রেফতারের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। একটা সূত্র জানাচ্ছে, রাজীবের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে মেল করে এক মাসের সময় চাওয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ও কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার দ্বন্দ্ব নিরসন শনিবার রাত অবধি অধরাই থেকে গেল।

এছাড়াও চেক করুন

বাঁকুড়ায় শিক্ষ‌কের বা‌ড়ি‌তে চু‌রি

নরেশ ভকত, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, বাঁকুড়াঃ বাঁকুড়া শহরের জুনবেদিয়া বাইপাসের কাছাকাছি পলাশতলা এলাকায় শিক্ষক বৈদ্যনাথ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.