Breaking News
Home >> Breaking News >> রানিহাটিতে সহিষ্ণুতার ছোঁয়ায় উল্টো রথের রশি পোক্ত

রানিহাটিতে সহিষ্ণুতার ছোঁয়ায় উল্টো রথের রশি পোক্ত

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়াঃ উল্টো রথে মিলেমিশে একাকার গ্রামীণ হাওড়ার রানিহাটি এলাকা। একাধিক গ্রামের হাজারো মানুষ শুক্রবার দুপুর থেকে ভিড় করে এলাকায়। মানুষের কোলাহল আর পাপড়, জিলিপি, ঘুগনির গন্ধে ম ম রানিহাটি তিন মাথা মোড়।

শুক্রবার ৬নম্বর জাতীয় সড়ক ঘেঁষা নাবঘরা গৌরী আশ্রমের উল্টো রথযাত্রা অনুষ্ঠান উপলক্ষে উপস্থিত হয়েছিল হাজার হাজার সাধারণ মানুষ। মঞ্চে গায়কের কন্ঠে লালনের সুর। পথে রথের রশি টেনে ধরেছে আট থেকে আশি সকলে। মিলনের শেষ পঙক্তি গড়ে উঠতে এতটুকু সময় নেয়নি। কথিত আছে মাসির বাড়িতে ৯দিন থেকে কাটিয়ে ঘরে ফিরছে দুই দাদা ও এক বোন। কপালে গেরুয়া তিলক, মুখে জয় জগন্নাথ আওয়াজে এক পা দু’পা করে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় জগন্নাথ, বলরাম ও শুভদ্রাকে।

সপ্তাখানেক আগে এই নাবঘরা গৌরী আশ্রমের সোজা রথযাত্রায় উপস্থিত হয়ে ‘কাটমানি’ নিয়ে রাজ্যের শাসক দলকে একহাত নিয়েছিলেন ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের পরাজিত প্রার্থী ভারতী ঘোষ।তিনি বলেন, ‘কাটমানি তো একজন নেয় না, সবাই নেয়। পুরোটাই চেন সিস্টেমে। নিচে থেকে উপরে উঠে গেছে। নিচের লোককে ধরে কি হবে? উপরের লোকেরা যে ৭৫ শতাংশ কাটমানি নিয়েছে সেটা তাদের ফেরত দিতে হবে’। তবে এসবকে দূরে সরিয়ে শুক্রবার রানিহাটি এলাকা ছিল মিলনমেলায় পরিণত।

কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, নাবঘরা গৌরী আশ্রমের চিরাচরিত রথযাত্রায় মানুষের মিলন ঘটে। রাজনীতি এখানে স্থান পায় না। তবে সাধারণ মানুষের মতো নেতারাও আসেন। কোন নেতা কি বললো মাথায় নেবার সময় থাকে না। হাজারো মানুষের মিলন এখানে বরাবর স্থান পেয়ে এসেছে। এ কারণেই রথের অনুষ্ঠান দীর্ঘায়িত হচ্ছে।

তবে রথ টানতে গিয়ে সন্ধ্যা গড়াতেই স্তব্ধ হয়ে যায় ৬নম্বর জাতীয় সড়ক। কোনক্রমে একটি লেন দিয়ে যান চলাচল সচল রাখা হয়। তবে উলুবেড়িয়া মুখি যানযট ধূলাগোড় টোল পৌঁছে যায়। আমতা-রানিহাটি সড়ক বন্ধ থাকে। তবে সবকিছু ছাপিয়ে গেছে মিলনের সৌহার্দ্য। ধর্মের ভেদাভেদ ঘুচিয়ে একত্র হয়েছিল দুই ধর্মের মানুষ। রথের রশিতে টানও দেওয়া হয়। ভাটিয়ালির সুর আর উড়তে থাকা ধূলোয় সহিষ্ণুতা সৃজনশীলতায় পরিণত।

এছাড়াও চেক করুন

হিংস্র প্রাণী না থাকায় সার্কাসে দর্শক বিমুখ, গ্রামীণ মেলায় উপচে পড়ছে ভিড়

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়াঃ ডিসেম্বর মাস আসলেই গ্রাম বাংলায় সার্কাসের তাঁবু বসতো। বাঘ-সিংহ, বিদেশি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.