Breaking News
Home >> Breaking News >> রাজনৈতিক চাপানউতোরের মাঝে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলকে একযোগে স্মরণ

রাজনৈতিক চাপানউতোরের মাঝে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলকে একযোগে স্মরণ

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ, হাওড়া: গ্রাম্যজীবনে কবিতা ও ছোট গল্পপাঠ মুছে যাওয়ার জোগাড়। উঠে আসছে ডিজের দাপট। পাশাপাশি বাড়ছে রাজনৈতিক চাপানউতোর। এমন একটি অস্থির সময়ে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলকে নিয়ে দিনভর চর্চা ও বিভিন্ন অনুষ্ঠান করে সাধারণ মানুষের মধ্যে নতুনত্বের সন্ধান দিল হাওড়া আমতা খড়দহ নিউ এজ সোসাইটি ফর রুরাল ওয়েলফেয়ার এবং কালচারাল ইনিসিএটিভ।

যত সব হিংসা, ঘৃণা নিপাত যাক। সুস্থ সংস্কৃতিকে ধরে রাখতে নতুন যুগের ডাক। রবিবার দুই কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও নজরুল ইসলাম কে ছন্দে-সুরে-তালে ও কবিতায় একমঞ্চে উপস্থিত করা হলো। রবিবার সকাল থেকে শুরু হয় দুই কবির ছবি নিয়ে গ্রাম প্রদক্ষিণ।

তারপর জাতীয় পতাকা উত্তলন। পরে ছোটদের অঙ্কনে উঠে আসে লালন ফকিরের গ্রাম, নজরুলের ভাবনা এবং রবিঠাকুর বিজড়িত শান্তিনিকেতন। এছাড়া কবিতা পাঠ, যেমন খুশি সাজো, পরিবেশ নিয়ে আলোচনা।

পরিবেশবিদ তথা প্রদীপ রঞ্জন রীত জানান, দুই কবিকে একমঞ্চে আনার উদ্দেশ্য সমাজে বিভেদ ও বিদ্বেষ কে কবির ছন্দে দূরে সরাতে চাওয়া। রবিঠাকুরের ১৫৯ তম জন্মদিবস ও বিদ্রোহী কবি নজরুল ইসলামের ১২১ তম জন্মদিবস একত্রে পালনের মধ্য দিয়ে সমাজে আকুলতা বয়ে আনতে চেয়েছি। উলুবেড়িয়া লোকমঞ্চ ও মহকুমার কবি বিদ্বজনেদের অনেকে যুক্ত হয় পরিবেশ এবং সমাজের ভালো দিক আলোচনায়।

অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা সায়ন দে জানান, আমরা দুই কবিকে নতুন প্রজন্মের কাছে আরও বেশি করে তুলে ধরতে চেয়েছি। ওদের ছোটবেলাটা রবীন্দ্রময় ও বিদ্রোহী কবি নজরুল সমানভাবে সমাদৃত হয়ে থাকুক। বিদ্রোহী কবি তাঁর লেখাতে বলেছেন, ‘হেথা সবে সম পাপী, আপন পাপের বাটখারা দিয়ে অন্যের পাপ মাপি!” গ্রামের মানুষ এগিয়ে আসছে, ছোটরা আগ্রহ দেখাচ্ছে আর যুব সমাজ হাতে হাত ধরে মহান সৃষ্টিকে সামনে রাখছে এটাই আমাদের প্রাপ্তি। আগামী দিনে আরও অনেক কাজ করতে চাই। সমস্তটা কবি ভাবনা দিয়েই।

দীর্ঘ চল্লিশ বছর জেলার বিভিন্ন প্রান্তে নাটক ও যাত্রা পরিবেশন করে আসা খড়দহ গ্রামের আদিত্য চক্রবর্তীকে দেওয়া হয় গ্রামরত্ন পুরস্কার। শীতলা মাতা নাট্য সমিতির হিমাংশু দে সহ মোট পনেরো জন সদস্য মিলে নাট্যভিনয় করে এসেছেন। আদিত্য বাবুর কথায়, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং নজরুল ইসলাম আমাদের শিরা উপশিরায় যুক্ত। ওনাদের নিয়ে এমন পরিবেশমূলক অনুষ্ঠান নতুনদের পাঠ দেবে। এলাকাবাসীদের কথায়, রাজনৈতিক অস্থিরতার মাঝে এমন বিভেদ মোচন অনুষ্ঠান স্থিতিশীলতার পক্ষে আদর্শ। মানুষের মধ্যে কবিদের বিষয় তুলে ধরতে হবে। সহজপাঠ আমাদের প্রথম শিক্ষা সেটা এখন ইংরেজি মাধ্যমে পড়া পড়ুয়ারা ভুলতে বসেছে। স্কুল পাঠ্য বইয়ে আবারও ফিরে আসলে সেটা হবে সমাজে একটা ভালো দৃষ্টান্ত।

দু’চোখ চিরতরে বন্ধ তবুও চায়না দত্ত আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে মঞ্চে গেয়ে বাকিদের বুঝিয়ে দিতে চেয়েছে কবি রয়েছেন মনে। চোখ অন্ধ তবুও রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও নজরুল ইসলাম কে প্রাণে এঁকে এগিয়ে চলেছে চায়না। দুই কবিকে নিয়ে অনুষ্ঠানে চায়নার মতো বহু প্রতিভাকে সামনে রেখে সমাজে ভালো দিক তুলে ধরল খড়দহ নিউ এজ সোসাইটি ফর রুরাল ওয়েলফেয়ার এবং কালচারাল ইনিসিএটিভ। সবশেষে অভিনীত হয় পরিবেশ সচেতনামূলক নাটক ‘নদীমাতৃক’।

এছাড়াও চেক করুন

লোকসভা সংসদীয় কমিটির তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রকের কমিটিতে নিশীথ

মনিরুল হক,স্টিং নিউজ করসপনডেন্ট, কোচবিহারঃ কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ নিশীথ প্রামানিক লোকসভা সংসদীয় কমিটির তথ্যরপ্রযুক্তি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.