Breaking News
Home >> Breaking News >> রক্তের দাগে সাদা বরফ আজ লাল, বিশ্ব এগোচ্ছে আর পড়শি দেশ জঙ্গিদের পালিত পুত্রের জনক হচ্ছে

রক্তের দাগে সাদা বরফ আজ লাল, বিশ্ব এগোচ্ছে আর পড়শি দেশ জঙ্গিদের পালিত পুত্রের জনক হচ্ছে

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ : ১৬-সালে উরি সেনা ছাউনি তে জঙ্গি হামলা তারপর কেটে গেছে প্রায় ঊনত্রিশ মাস। এবার আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়। একের পর এক জঙ্গি হামলায় বারেবারে কেঁপে উঠছে ভূস্বর্গ। জঙ্গিদের লক্ষ্য নিদিষ্ট। যেন তেন প্রকারেণ ভারতীয় সেনার উপর অতর্কিত হামলা। ভয়াবহ আক্রমণ করে সেনার মনোবলে চিড় ধরানো। ভূস্বর্গ জুড়ে ভয়ের বাতাবরণ প্রতিষ্ঠা করা।

একের পর জঙ্গি গোষ্ঠীর প্রাণশক্তি জোগাচ্ছে পড়শি দেশ। তাদের প্রত্যক্ষ মদতে ভারতে আঘাত হানছে জৈশ-ই-মহম্মদ এর মতো জঙ্গি গোষ্ঠী। কাশ্মীর জুড়ে একের পর এক নাশকতার বিচ বপন করছে। হিংস্রতার ছায়ায় বরফের রাজ্য। সাদা বরফের আস্তরণ জুড়ে লাল রক্তের ছিটে। সেবার উরির সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলায় উনিশ জন ভারতীয় সেনাকর্মী প্রাণ হারান। এ দিন মৃত্যুর সংখ্যা তিরিশ ছাড়িয়েছে। আহতের সংখ্যা প্রায় কুড়ি।

গণতন্ত্র রক্ষা করা দেশ ভারতবর্ষ। কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী জুড়ে সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা। তবুও সীমান্ত পেরিয়ে জঙ্গিদের দল আঘাত হানে। হয়তো রক্তের হোলিখেলা ওদের হৃদযন্ত্রে লেখা। স্বাধীনতা দিবস হোক বা ছাব্বিশে জানুয়ারি কিংবা অমরনাথ যাত্রা বা ভোটের সময় আসন্ন হলে জেগে ওঠে ও পারের জঙ্গি গোষ্ঠী। নাশকতার নীল নকশা রচনা করা হয়। রাতের অন্ধকারে ও পারের কোন যুবক অথবা অধিকৃত কাশ্মীরের ব্রেন ওয়াশ করা যুবকের পেটে বোমা বেঁধে, গাড়িতে বারুদ ভরে, হাতে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে পাঠানো হয়। বাকিটা আজকের টাটকা চিত্র।

এ দিন যে সেনাবাহিনীর ৫০টি গাড়ির কনভয় যাবে তা জঙ্গিদের কাছে নিদিষ্ট তথ্য ছিল। শ্রীনগর-অনন্তনাগ হাইওয়ের উপর নিরাপত্তা থাকলেও নিখুঁত টার্গেট হানতে বদ্ধপরিকর ছিল। যে কারণে এতজন জওয়ানের একসাথে মৃত্যু। এই প্রতিবেদন যখন লেখা হচ্ছে মৃত্যুর সংখ্যা চল্লিশ। এক কথায় বলা যায় এই মুহূর্তে ভূস্বর্গ জুড়ে মৃত্যুর হাহাকার। এই ঘটনা জঙ্গিদের সুদক্ষতার পরিচয় নাকি নিরাপত্তায় কোন গাফিলতি ছিল তা তদন্ত সাপেক্ষ ব্যপার।

এত বড় ধরনের আতঙ্কবাদী হামলার শিকার হল এই দেশ। মৃত্যু হল চল্লিশের মতো জওয়ানের। ভারত কি আবারও কোন সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করবে! সর্বত্র প্রশ্ন ঘোরাফেরা করছে। প্রধানমন্ত্রী এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। একাধিক বিরোধী নেতা-নেত্রী এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে টুইট করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার পাতাজুড়ে শোকের আবহ। তবুও পড়শি দেশ জঙ্গিদের পাশে থাকবে। মৃত্যু দেখেও নিন্দা নেই ওদের মুখে। শহিদ জওয়ানদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাবার ভাষা ওদের মুখ দিয়ে বের হয় না।

বিশ্ব এগিয়ে চলেছে। বিভিন্ন দেশে গণতন্ত্র প্রতিস্থাপিত হচ্ছে। অথচ একটা দেশ স্বমহিমায় জঙ্গিদের সাহায্য করে চলেছে। মৃত্যুর আগে রক্তের রঙ দেখতে চাইছে। হয়তোবা জঙ্গিদের পালিত পুত্রের জনক হতে চাইছে।

এছাড়াও চেক করুন

ফাঁসিদেওয়ার মুণি চা বাগানে গণ বিবাহ অনুষ্ঠানে হাজির পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব

বিশ্বজিৎ সরকার, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, দার্জিলিংঃ শুক্রবার শিলিগুড়ি মহকুমার ফাঁসিদেওয়া ব্লকের মুণি চা বাগানে শ্রীহরি …

Leave a Reply

Your email address will not be published.