Breaking News
Home >> Breaking News >> হলদিয়ায় কন্টেনার টার্মিনাল গড়তে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী নেপাল

হলদিয়ায় কন্টেনার টার্মিনাল গড়তে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী নেপাল

স্টিং নিউজ সার্ভিস, ২৩জুন: হলদিয়ায় পরিবেশ-পর্যটন ও বন্দরে বাণিজ্যের জন্য কন্টেনার টার্মিনাল গড়তে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী নেপাল। শনিবার হলদিয়া ট্রেড সেন্টারে ‘হলদিয়া-নেপাল ট্যুরিজম এন্ড বিজনেস মিট’ শীর্ষক এক মত বিনিময় সভায় একথা জানালেন নেপালের কনসাল জেনারেল একনারায়ণ আরিয়াল। এই বিজনেস মিটে হলদিয়া কলকাতার বন্দর কর্তারা ছাড়াও আইওসি,এমসিপিআই,হলদিয়া এনার্জি,পেট্রকেম,এক্সাইড সহ ৩০টি শিল্প সংস্থার পদস্থ আধিকারিক ও প্রতিনিধি,হলদিয়ার ট্যুর অপারেটর,সরকারি আধিকারিকরা উপস্থিত ছিলেন। ওই বিজনেস মিটে তমলুকের সংসদ সদস্য দিব্যেন্দু অধিকারী নেপালের কনসালের কাছে হলদিয়া বন্দর সহ পূর্ব মেদিনীপুরের সমুদ্র সৈকত ও পুরাতত্ত্বিক স্থানগুলিকে নিয়ে সার্কিট ট্যুরিজম প্রকল্প গড়ে তোলার প্রস্তাব দিয়েছেন।

নেপালের কনসাল জেনারেল বলেন,হলদিয়া বন্দরের সঙ্গে নেপালে সম্পর্ক দীর্ঘদিনের এবং প্রধানত এই বন্দরের ওপর নির্ভরশীল নেপাল। এই বন্দরের মাধ্যমে স্টিল সহ বিভিন্ন ধরণের প্রজেক্ট কার্গো,সিমেন্ট শিল্পের জন্য ক্লিংকার,সার,প্রচুর পরিমানে ভোজ্য তেল,চিনি আমদানি করি আমরা। কিন্তু ইদানিং যথেষ্ট কন্টেনার নির্ভর কার্গো যেমন সারের ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছে। নেপালের চাষিরা সময়মতো সার পাচ্ছেন না।

পুরসভার চেয়ারম্যান শ্যামলকুমার আদক বলেন,শুধু হলদিয়া বন্দর নয়,নেপাল হলদিয়া আইওসি রিফাইনারি,এক্সাইড,বিভিন্ন ভোজ্য তেল কারখানা,চিনি কারখানার ওপর নির্ভরশীল। হলদিয়া বন্দরের মাধ্যমে নেপালের প্রায় ৩হাজার কোটি টাকার ব্যাবসা বাণিজ্য হয়। হলদিয়া বন্দরের একটা বড় অংশ কার্গো ‘নেপাল কার্গো’ হিসাবে পরিচিত। এর সঙ্গে বন্দরের বহু মানুষের রুটি রুজি জড়িত। সেজন্য আমরা ঠিক করেছি হলদিয়ার সঙ্গে নেপালের সম্পর্ক আরও জোরদার করতে কয়েকটি পদক্ষেপ করা হবে। এজন্য পর্যটন ও বন্দর ভিত্তিক ব্যাবসায় জোর দেওয়া হবে। আমরা নেপালকে হলদিয়ায় জমি দেব কন্টেনার টার্মিনাল গড়ার জন্য। হলদিয়া ও নেপালের পেখরা দুই শহরকে ‘ট্যুইন সিটি’ প্রকল্পে গড়ে তুলে সাংস্কৃতিক,বাণিজ্যিক আদানপ্রদান হবে।

কলকাতা-হলদিয়া বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়,হলদিয়া বন্দর দিয়ে গত আর্থিক বছরে নেপালের পণ্য আমদানি রপ্তানির বৃদ্ধির হার ছিল ৩৩শতাংশ। চলতি আর্থিক বছরে তা আরও বাড়বে বলে আশা করছি। আইওসির একজিকিউটিভ ডিরেক্টর চন্দ্রকান্ত তেওয়ারি বলেন,হলদিয়া আইওসি থেকে ট্যাঙ্কারে করে প্রতি বছর নেপালে প্রায় ১লক্ষ ৪০হাজার টন পেট্রল,ডিজেল সহ কয়েকটি পেট্র পণ্য সরবরাহ করা হয়। এবার তা পাইপলাইনের সাহায্যে পাঠাতে প্রায় ৩৬কিলোমিটার লাইন পাতা হচ্ছে।

loading...

এছাড়াও চেক করুন

কাটোয়ার শ্রীখণ্ড মুসলিম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অরণ্য সপ্তাহ উপলক্ষ্যে পদযাত্রা

গৌরনাথ চক্রবর্ত্তী, কাটোয়াঃ অরণ্য সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষ‍্যে কাটোয়া ১নং ব্লকের শ্রীখন্ড মুসলিম অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.