Breaking News
Home >> Breaking News >> দিন মজুরের মেয়ে রুপসিনার নম্বর ৪৬২, থমকে যেতে পারে ভবিষ্যৎ

দিন মজুরের মেয়ে রুপসিনার নম্বর ৪৬২, থমকে যেতে পারে ভবিষ্যৎ

শুভায়ুর রহমান, পলাশী পাড়া: গ্রামের পাকা রাস্তা থেকে এক্কেবারে ২ কিমি ভিতরে।ভাঙাচোরা রাস্তার পরে জিজ্ঞাসা করে খুঁজে পাওয়া গেল মেয়েটির বাড়ি।তবে বাড়ি গিয়ে ধরা পড়ল অন্যছবি।বাঁশ বাগানের একপাশে টিনের ছাউনি ও পাঠকাঠির বেড়া দিয়ে তৈরি নড়বড়ে এককামরার ঘর।

আকাশে মেঘ জমলেই বাড়ির সদস্যদের মনে ভয়ের বাতাবরণ শুরু হয়।এই বুঝি সব তছনছ হবে।সেই রকম অত্যন্ত দারিদ্র্যতার সাথে লড়াই করে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় সাফল্যের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছে নদিয়ার পলাশী পাড়া থানার হাঁসপুকুরিয়া গ্রামের রূপসিনা খাতুন ।অথচ তার ভবিষ্যৎ অথৈজলে।কিভাবে মেয়ে পড়বে কলেজে?অর্থাভাবে পড়া না বন্ধ হয়ে যায়।সেই নিয়ে চিন্তার শেষ নেই বাবা মায়ের।

দিন আনা দিন খাওয়া অবস্থা বাড়ির মালিক অপিজুদ্দিন সেখের।তার মেয়ে রূপসিনা খাতুন কষ্ট করে অভাবকে জয় করে ৪৬২ নম্বর তুলেছে।তার বিষয় ভিত্তিক নম্বর বাংলা-৮৭,ইংরেজি -৯০,ভূগোল -৯১,দর্শন-৯৭,সংস্কৃত -৯৬,ইতিহাস -৮৮ পেয়েছে।কিন্তু এত ভালো ফলের পরেও থমকে যেতে পারে রূপসিনার ভবিষ্যৎ।

অপিজুদ্দিন সেখের পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া ৩ শতক বাড়ির জায়গায় সম্বল।বাড়িতে ইঁটের লেশমাত্র নেই।সরকারি ভাবেও কোন বাড়ি পাননি।চাষ যোগ্য কোন জমি নেই।পরের জমিতে খেটে এক মাত্র মায়ে রূপসিনা ও ছেলে নবম শ্রেনীর ছাত্র সাহারুল মন্ডলের পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছেন। রূপসিনা  হাঁসপুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যাপীঠ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক দিয়েছিল।মাধ্যমিক পরীক্ষাতেও সে ৫৭৭ নম্বর তুলেছিল।

রূপসিনার কথায় ‘খুব কষ্ট করে আব্বা পরের জমিতে খেটে পড়াচ্ছে।ইংরেজি নিয়ে পড়ে ভাল শিক্ষিকা হতে চাই।”রূপসিনার মা ফুলমনি বিবি ও বাবা অপিজুদ্দিনরা বলেন” আমরা গরীব।কত কষ্ট করে পড়াচ্ছি আল্লাহ ই ভাল জানেন।বাড়িতে দেখতেই পাচ্ছেন আমাদের দশা।”রূপসিনার শিক্ষক দেবাশিস বিশ্বাস জানায়” মেয়েটি খুবই মেধাবী। ওদের বাড়িঘর বা সম্পত্তি কিছুই নেই।অভাবকে খুব কাছ থেকে দেখে মেয়েটি আজ সফল।কিন্তু তার লড়াইতো এবারই শুরু হল।মেয়েটির দিকে স্কুলের নজর ছিল মেয়েটি ভাল ফল করবে।”

loading...

এছাড়াও চেক করুন

পাঁচ ছাত্রীকে কন্যাশ্রী পুরস্কার দিল কোচবিহার জেলা প্রশাসন

মনিরুল হক, কোচবিহারঃ নাবালিকা বিবাহ রোধ, দক্ষতা বৃদ্ধি ইত্যাদি ক্ষেত্রে নজির তৈরি করা পাঁচ জন …

Leave a Reply

Your email address will not be published.