Breaking News
Home >> Breaking News >> আদিবাসী বিক্ষোভের জের হাওড়া থেকে ছাড়লো না উত্তরের শতাব্দী এক্সপ্রেস, যাত্রী বিক্ষোভ গড়াল রেলমন্ত্রকে

আদিবাসী বিক্ষোভের জের হাওড়া থেকে ছাড়লো না উত্তরের শতাব্দী এক্সপ্রেস, যাত্রী বিক্ষোভ গড়াল রেলমন্ত্রকে

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, হাওড়া: নিজেদের ১০ দফা দাবিতে রাজ্যে কয়েকটি জায়গায় সকাল থেকে আদিবাসী ট্রেন অবরোধ-এর জের, সোমবার নির্ধারিত সময়ের বহু পরেও উত্তরবঙ্গগামী হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি শতাব্দী এক্সপ্রেস না মেলায় ও পরে বাতিল ঘোষণা করায় যাত্রী বিক্ষোভ চরমে উঠল হাওড়া স্টেশনে।

বিহারের পুর্নিয়া জেলার কিষানগঞ্জ, মালদা, পুরুলিয়া এছাড়া আসামে সকাল থেকেই রেল অবরোধে নামেন আদিবাসীরা। তাঁদের দীর্ঘ দিনের বঞ্চনা সেইমতো ১০ দফা দাবি নিয়ে কেন্দ্রের সরকারের উপর চাপ বাড়াতে রেল লাইনে সকাল থেকে বসে পড়ে আদিবাসী দের বিভিন্ন সংগঠন। বিভিন্ন স্টেশনে দাঁড়িয়ে পরে একাধিক দূরপাল্লার এক্সপ্রেস ট্রেন।

সদ্য শুরু হয়েছে বহু বেসরকারি স্কুলে গ্রীষ্মাবকাশ। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী উত্তরে যাবার ট্রেনের টিকিট হাতে হাওড়া স্টেশনে নির্ধারিত সময়ের বহু আগে পৌঁছে যায় বহু যাত্রী। বহু মাস পরে পাহাড় আবার শ্রান্ত। খিলখিল করছে দার্জিলিং-এর টাইগার হিল। এমন সুযোগ হাতছাড়া কবে করেছে বাঙালি অগত্যা লাগেজ ও পরিবার নিয়ে হাওড়া স্টেশনে পৌঁছে যাওয়া। এই পর্যন্ত ঠিক থাকলেও বাধ সাধে রেলের অনলাইন তথ্য প্রদান।

এই বিষয় নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগের আঙুল রেলের দিকে। সুপর্ণা রায়, মানস সিনহা সহ একাধিক যাত্রীর অভিযোগ, হাওড়া স্টেশনে পৌঁছে নিউ জলপাইগুড়ি যাবার শতাব্দী এক্সপ্রেসের কোন খবর পাওয়া যায়নি। অথচ রেলের অনলাইন তথ্যে বলা হচ্ছে সঠিক সময়ের উল্লেখ। বহু সময় পরে ট্রেনটি বাতিল বলে ইলেক্ট্রনিক বোর্ডে লিখে দেওয়া হয়। অথচ ট্রেন ধরার জন্যে সকাল ৯টা নাগাদ হাওড়া স্টেশনে এসে পৌঁছান তাঁরা। নির্ধারিত সময় বেলা ২টো ১৫ মিনিটে হাওড়া স্টেশন থেকে নিউ জলপাইগুড়ি উদ্দেশ্যে শতাব্দী এক্সপ্রেস ছেড়ে যাওয়ার কথা। অথচ ট্রেনটি নির্ধারিত সময় পার করে যাওয়ার পর বেলা প্রায় পৌনে তিনটে নাগাদ হাওড়া স্টেশনে ট্রেনটি বাতিল করার সিদ্ধান্ত মাইকে জানায় রেল।

রেলের এমন অমানবিক কাজের বিরুদ্ধে রেলমন্ত্রকে অভিযোগ জানাবার কথা জানিয়েছেন বহু যাত্রী। যদিও এই প্রসঙ্গে রেল ঘুরিয়ে আদিবাসী দের অবরোধ কেই দায়ী করেছে। পুর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক রবি মহাপাত্র জানিয়েছেন, পরিষেবা দেবার ইচ্ছে থাকলেও উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পরিষেবা সম্ভব হয়নি। বিশেষ ট্রেন দিয়ে যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘব করার পরিকল্পনা করলেও অতিরিক্ত রেক না থাকায় সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ীত করা যায়নি বলেও জানান তিনি।

বহু যাত্রী বাধ্য হয়েছেন পরিবার নিয়ে ধর্মতলা উদ্দেশ্যে রওনা হতে। কেউ কেউ শিয়ালদা হয়ে যাবার প্রস্তুতি নিয়েছেন কিন্তু এই গরমের মুহূর্তে কনফার্ম টিকিট মেলাটা কত কঠিন সেটা কি বুঝবে রেল তাছাড়া হোটেল অবধি বুকিং হয়ে রয়েছে তারা কি আর টাকা ফিরত দেবে ! ভ্রমণের মুহূর্তে সুর কেটে যাওয়ায় যাত্রীদের একাংশ রেলের প্রতি বীতশ্রদ্ধ।

দেখুন ভিডিও:

loading...

এছাড়াও চেক করুন

কৃষ্ণনগর ১নং ব্লকের উদ্যোগে আয়োজিত হল রক্তদান শিবির

স্টিং নিউজ সার্ভিস: শুক্রবার প্রচন্ড গরম ও তাপ প্রবাহের মধ্যে নদিয়ার কৃষ্ণনগর ১নং ব্লকের বিষ্ণুপুর ব্লক …

Leave a Reply

Your email address will not be published.