Breaking News
Home >> Breaking News >> মাটি ফেলা নিয়ে উপপ্রধান-গ্রামবাসী সংঘর্ষ, ভাঙচুর বাইক, আক্রান্ত পুলিশ

মাটি ফেলা নিয়ে উপপ্রধান-গ্রামবাসী সংঘর্ষ, ভাঙচুর বাইক, আক্রান্ত পুলিশ

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, হাওড়া: মাটি ফেলাকে কেন্দ্র করে পঞ্চায়েত ভোটের আগে উপপ্রধান ও গ্রামবাসীদের মধ্যে সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল হাওড়া গ্রামীণ এলাকা। যার জেরে রাতভোর এলাকাছাড়া বহু মানুষ। ঘটনাটি ঘটেছে হাওড়া জয়পুর থানার থলিয়া গ্রামে।

জানা গেছে, এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া দামোদর নদের সঙ্গে যুক্ত করা ক্যানেল কে পুনরায় খনন করা হচ্ছে বন্যা প্রতিরোধ করবার উদ্দেশে। ওই ক্যানেলের মাটি লরি করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বিভিন্ন এলাকায়। কোথাও জমি ভরাট করা হচ্ছে কোথাও বা নয়ানজুলি। থলিয়া গ্রামে বল খেলার মাঠের কিছুটা দূরে কবরস্থানের জমি ভরাট করার জন্য মাটি ফেলানোর কথা ছিল থলিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের। এই নিয়ে উপপ্রধান ও গ্রামবাসীদের মধ্যে ক্ষোভের কারণ হয়ে ওঠে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, পঞ্চায়েতের উপপ্রধান প্রশান্ত মণ্ডল কবর স্থানে মাটি ফেলতে রাজি হননি। অভিযোগ উঠেছে উপপ্রধানের কথায় না চলবার কারণে এমন সিদ্ধান্ত। বাধ্য হয়ে রাস্তা দিয়ে মাটি ভর্তি গাড়ি জোর করে ওই স্থানে ফেলা হয়। এই খবর কানাকানি হয়ে পৌঁছে যায় উপপ্রধানের কানে। এরপর উপপ্রধান কয়েকজন তৃণমূল কর্মীকে নিয়ে ওই স্থানে আসে। গ্রামবাসীদের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। বচসা চলাকালীন হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন উপপ্রধান ও তৃণমূল কর্মীরা। এরপরেই ঘটনাস্থলে এসে পৌছায় জয়পুর থানার পুলিশ। ক্ষ্রীপ্ত হয়ে ওঠে এলাকাবাসী। তাঁদের অভিযোগ পুলিশ নিয়ে এসেছে উপপ্রধান নিজেই! পুলিশকে লক্ষ করে ইট ছুড়তে থাকে এলাকাবাসী। ঘটনায় আহত হয়েছেন জয়পুর থানার এএসআই ও দুজন কনস্টেবল।

ঘটনার খবর থানায় পৌঁছতেই রাতেই পুলিশের বিশাল বাহিনী এলাকায় পৌঁছায়। সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার হয়েছেন এক মহিলা সহ চারজন। তবে গ্রামবাসীদের অভিযোগ পুলিশ এসে ঘরের চাল এমনকি বাইক ভাঙচুর করেছে।

loading...

এছাড়াও চেক করুন

হালিশহর বানিমন্দির এলাকায় বোমাতঙ্ক

স্টিং নিউজ সার্ভিস: শুক্রবার গভীর রাতে হালিশহর বানিমন্দির সংলগ্ন ওয়ার্ড অফিসের সামনে কিছু দুষ্কৃতী বোমা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.