Breaking News
Home >> Flash >> ভাগ্যের হাতে লাল-হলুদের খেতাবি অঙ্ক

ভাগ্যের হাতে লাল-হলুদের খেতাবি অঙ্ক

স্টিং নিউজ স্পোর্টস ডেস্ক : সত্যজিৎ রায় বেঁচে থাকলে নির্ঘাত জটায়ু কে দিয়ে ফেলুদার রহস্য উপন্যাসে বলাতেন,” বুঝলেন মশাই আই লিগ জেতার খেতাবি অঙ্কের থেকে কেশব নাগের অ্যালজেবরা কষা অনেক সহজ মশাই”। সত্যিই বটে। সত্য বাবু কি বলতেন, আর ফেলু মিত্তির আদৌ ভুরু কোঁচকাতেন কিনা সেটা তর্কের বিষয়। ফিরে আসি ম্যাচ আর লিগের লড়াই প্রসঙ্গে। লাজং কাটায় ফের বিদ্ধ ইস্টবেঙ্গল। পাহাড়ে গিয়ে ফের পয়েন্ট নষ্ট লাল-হলুদের। আই লিগ পরীক্ষায় স্টার পেয়ে পাশ করার জন্য সহজ সমীকরণ ছিল ইস্টবেঙ্গলের। পর পর দুটো ম্যাচ জেতো আর ফার্স্ট বয় হও। কিন্তু সেই মক্ষম সময়ে ফেল করে বসলেন খালিদের ছাত্ররা। এগিয়ে গিয়েও ২-২ গোলে ড্র করে, পাহাড়েই আই লিগ রেখে এল ইস্টবেঙ্গল।
আক্রমণাত্মক স্ট্রাটেজিতে লাজংয়ের বিরুদ্ধে দল নামিয়েছিলেন খালিদ জামিল। ক্রোমা-ডুডু জোড়া স্ট্রাইকারে উপড়াতে চেয়েছিলেন অঘোষিত সেমিফাইনালের বাধা। শুরুটাও হয়েছিল তাই। প্রথম ২০ মিনিটের মধ্যেই লাজংয়ের জালে বল জড়িয়ে দেন ডুডু। সবকিছু এগোচ্ছিল একেবারে পরিকল্পনা মাফিক। কিন্তু হঠাৎ করেই লাল-হলুদ ফুটবলাররা কেমন যেন স্বার্থপর হয়ে গেলেন। আমনা-কাতসুমি বাদে সবাই কেমন যেন সেলফিস ফুটবল খেললেন। ডিফেন্সও তথৈবচ হয়ে গেল। বিরতির আগে ১-০ গোলে পিছিয়ে থাকা লাজং সমতা ফেরালো দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই। সেটপিস থেকে গোল খাওয়ার পুরোনো রোগ থেকে বেরোতে পারলনা খালিদের ছেলেরা। আর এর পর তো রাইট ব্যাক মেহেতাব সিং বক্সে ফাউল করে লাজংকে পাইয়ে দিলেন পেনাল্টি। স্পটকিক থেকে ইস্টবেঙ্গলের জাল কাপে জেতেই স্টেডিয়ামে উপস্থিত লাল-হলুদ সমর্থকরা যেন দেওয়াল লিখনটা পড়ে ফেললেন,”আর হলনা”। আর গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়তেই যেন হতভম্ভ লাল-হলুদ ফুটবলারা। যে মাত্রায় লম্বা লম্বা বল গুলো ডুডু দেবায় নম বলে বক্সের উপর রাখছিলেন তাতে মনে হচ্ছিল লাজংয়ের স্টেডিয়ামে সেই বব হাউটনের ভারতীয় দলের উদ্দেশ্যহীন ফুটবল চলছে। পরে জবি জাস্টিন কে নামিয়ে তিন স্ট্রাইকারে চলে গেলেন খালিদ। সমতা ফিরল সেই ডুডুর হেড থেকেই। ক্রোমার জোরালো শটকে শুধু জালের ঠিকানা দিলেন ডুডু। জোড়া গোল করেও আইলিগের ঠিকানা দিতে পারলেন না এই নাইজেরিয়ান।
এদিনের পর আইলিগ টেবিলটা দাঁড়াল
মিনার্ভা ১৭ ম্যাচে ৩২
নেরোকা ১৭ ম্যাচে ৩১
মোহনবাগান ১৭ ম্যাচে ৩০
ইস্টবেঙ্গল ১৭ ম্যাচে ৩০।
ফলে এখন লিগ জিততে হলে আট তারিখ নেরোকা কে হারাতেই হবে ইস্টবেঙ্গল কে। তাকিয়ে থাকতে হবে মোহবাগান আর মিনার্ভার হারের দিকেও।
এখন দেখার লক্ষীবারে সাপ-সিড়ির আই লিগ ওঠে কার হাতে?
ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান, মিনার্ভা নাকি নেরোকা?
উত্তর জানতে অপেক্ষা আর দুটো দিন।

loading...

এছাড়াও চেক করুন

কোচবিহারে নদীতে ঝাঁপিয়ে নিখোঁজ প্রথম বর্ষের ছাত্রী, শোকস্তব্ধ পরিবার

মনিরুল হক,  স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, কোচবিহারঃ মোবাইলে কথা বলতে বলতে সেতুর উপর থেকে নদীতে ঝাঁপিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.