Breaking News
Home >> Breaking News >> জনজোয়ারের মাঝে পালন করলেন ভাষা দিবস, উদ্বোধন ও শিলান্যাস করলেন একগুচ্ছ প্রকল্পের

জনজোয়ারের মাঝে পালন করলেন ভাষা দিবস, উদ্বোধন ও শিলান্যাস করলেন একগুচ্ছ প্রকল্পের

পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ এদিন দুপুর ১.২৮ মিনিটে তিনি গৌড় বঙ্গের মালদা জেলার সফর শেষ করে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সরকারি জনসভায় যোগ দিতে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়ামে পৌঁছান রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পালন করলেন মাতৃভাষা দিবস। উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র, জেলার সাংসদ অর্পিতা ঘোষ, রাষ্ট্র মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা, রাজ্য সরকারের পুলিশ ডিজি সুরজিত কর পুরকায়স্থ, গায়ক ইন্দ্রনিল সেন, প্রাক্তন কারামন্ত্রী শংকর চক্রবর্তী, জেলা পুলিশ এস পি প্রসূন ব্যানার্জী, কুমারগঞ্জের বিধায়ক তোরাব হোসেন মন্ডল, জেলাশাসক শরত কুমার দ্বিবেদী, মহকুমা শাসক দেবাঞ্জন রায়, গঙ্গারামপুর ও বুনিয়াদপুর পুরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র ও অখিল বর্মন সহ অন্যান্য বিশিষ্টরা।সেখানে সভা মঞ্চ থেকে একগুচ্ছ প্রকল্পের শিলান্যাস ও উদ্বোধন করলেন তিনি। পাশাপাশি কন্যাশ্রী, সবুজসাথী, ফোয়ারা সেচ যন্ত্র, গীতাঞ্জলী, দুঃস্থ সংখ্যালঘু মহিলাদের পুনর্বাসন, মৌ পালক পরিচয়পত্র, লোকপ্রসার প্রকল্প,বিপর্যয় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ত্রাণ, মৎসজীবীদের তাপনিরোধক বাক্স সহ সাইকেল, ভর্তুকিতে যন্ত্রপাতি সহ একধিক পরিষেবা সরাসরি উপভোক্তাদের হাতে তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী।উদ্বোধন ও শিলান্যাস করলেন একগুচ্ছ প্রকল্পের।

তপন ব্লকে দক্ষিণ জামালপুর উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও রামপাড়া চেচড়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ওয়েটিং হাব।

বালুরঘাট ব্লকে ডি আর এস অ্যানেক্স বিল্ডিং ও ভবানীপুরে উপ- স্বাস্থ্যকেন্দ্র।

তপন ব্লকে ২ টি শীততাপ নিয়ন্ত্রিত অ্যাম্বুলেন্স।

হরিরামপুর, হিলি এবং বালুরঘাট ব্লকে নলবাহিত পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্প।

জেলার বিভিন্ন স্থানে ৪০টি অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র।

জেলার বিভিন্ন ব্লকে মোট ৩৮টি নতুন রাস্তা।

হরিরামপুর, তপন ও কুশমন্ডি ব্লকে আইটিআইতে সংখ্যালঘু ছাত্রদের হস্টেল।

বুনিয়াদপুর ব্লকে অগ্নি নির্বাপণ কেন্দ্র।

বালুরঘাট ব্লকে ৩৭০০ মেট্রিকটন ক্ষমতা সম্পন্ন গুদাম।

গঙ্গারামপুর ব্লকে মহকুমা হাসপাতালের বর্জ্য-পদার্থ পৃথকীকরণ স্থান।

বালুরঘাট ব্লকে জেলা প্রাণী বিক্ষণাগারের পরিবর্তন ও পরিবর্ধন।

কুশমন্ডি, হরিরামপুর ও বালুরঘাট ব্লকে সেতু।

বালুরঘাট ব্লকে ৫টি গুচ্ছ নলকূপ।

গঙ্গারামপুর ব্লকে বিওপি ক্যাম্পে ইন্ডিয়ান মার্ক টু টিউবওয়েল স্থাপন।

জেলার বিভিন্ন ব্লকের ২৫৭টি স্কুলে অতিরিক্ত শ্রেণিকক্ষ, ১৩৩টি বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর, নবগঠিত ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন গৃহ এবং ৫টি উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিকাঠামোর উন্নয়ন।

বংশিহারি ব্লকের বুনিয়াদপুরে নবনির্মিত আদিবাসী সুসংহত উন্নয়ন সংস্থার কার্যালয়।

কুশমন্ডি ব্লকে এসএসকে ভবন।

কুমারগঞ্জ ব্লকে অফিসের ভিতরে কর্মতীর্থ ভবনের উপরে নবনির্মিত কমিউনিটি হল।

জেলার বিভিন্ন ব্লকে ৭টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

গঙ্গারামপুর ও কুশমন্ডি ব্লকে ২টি ৩৩/১১কেভি সাবিস্টেশন।

জেলার তিনটি ব্লকে দানগ্রাম, কুশমন্ডি ও নাকইর কর্মতীর্থ।

কুশমন্ডি, তপন ও কুমারগঞ্জ ব্লকের বিভিন্ন স্থানে ৮৮টি মার্ক টু টিউবওয়েল স্থাপন।

বালুরঘাট, গঙ্গরামপুর ও বংশীহারিতে মোট ৯টি গ্রিন করিডোর জোনের উন্নয়ন।

জেলার বিভিন্ন ব্লকে ২৬টি নতুন রাস্তা।

জেলার বিভিন্ন ব্লকে ৫টি সদ্ভাব মন্ডপ।

বালুরঘাট ব্লকে রবীন্দ্র ভবনের সংস্কার ও আধুনিকীকরণ, জাদুঘরের নবীকরণ ও সার্কিট হাউসের সংস্কার।

বালুরঘাট ব্লকে পতিরাম নেতাজি সুভাষ মার্কেট কমপ্লেক্সে ৬টি স্টলসহ শপিং কন্সট্রাকশন।

হরিরামপুর ও গঙ্গারামপুর ব্লকে ২টি বিদ্যালয়ে আদিবাসী ছাত্রাবাস।

বালুরঘাট,গঙ্গারামপুর,কুমারগঞ্জ ও তপন ব্লকে মোট ৯টি বক্স ব্রিজ।

বংশীহারি ব্লকের মীরজাদপুরে নলবাহিত পানীয় জল সরবরাহ প্রকল্প।

বালুরঘাট, কুশমন্ডি ও হরিরামপুর ব্লকে সৌর বিদ্যুৎ চালিত টিউবওয়েল সেচ প্রকল্প।

বালুরঘাট ও গঙ্গরামপুর ব্লকে মোট ৮টি চেকড্যাম।

কুশমন্ডি ব্লকে টাঙ্গন নদীর বাম পার্শ্বে বোল্ডার দ্বারা পাড় বাঁধানো এবং ভাঙ্গন প্রতিরোধের কাজ।

বালুরঘাট, হিলি ও গঙ্গারামপুর ব্লকে ৩৭টি রাস্তার সংস্কার।

বংশীহারি ব্লকে বুনিয়াদপুর মিউনিসিপ্যাল অফিস বিল্ডিং।

হিলি ব্লকের মথুরাপুর গ্রামে কমিউনিটি হল।

গঙ্গারামপুর পুরসভায় ৪টি মাল্টি জিমনাসিয়াম।

কুশমন্ডি ব্লকে কুশমন্ডি হ্যান্ডিক্রাফট সোসাইটি /মহিশবাথান গ্রামীন হস্তশিল্প সমবায় সমিতির শোরুম ও ওয়ার্কশপ।

গঙ্গারামপুর পুরসভার কালদিঘির সৌন্দর্যায়ন, আলোকিতকরণ,স্পিড বোট ও প্যাডেল বোট ব্যবস্থা।

তপন ব্লকে ভাতশালা গ্রামে একটি সীমানা প্রাচীর।

বালুরঘাট ব্লকে চকডাঙ্গা খাড়ির উপর বক্স কালভার্ট।

গঙ্গারামপুর ও কুশমন্ডি ব্লকে ২টি বিদ্যালয়ের পরিকাঠামো উন্নয়ন।

বালুরঘাট ব্লকে আরণ্যক উদ্যানের পরিকাঠামো উন্নয়ন।

কুমারগঞ্জ ব্লকে ডাঙ্গারহাট হাইস্কুলে মিনি ইনডোর গেমস কমপ্লেক্স। পাশাপাশি জেলায় একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় করার কথা বলেন।
এদিন মঞ্চ থেকেই কুশমন্ডির নির্যাতিতার সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনের জন্য দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।সে জীবনের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে আসুক মাথার ছাদ ও ভবিষৎ জীবনে যেন তাঁর কোনও কষ্ট না হয় সেই ব্যবস্থা করবেন বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

গঙ্গারামপুরের সরকারি জনসভা থেকে কুশমন্ডির আদিবাসী নির্যাতিতার প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমি সব খবরই নিয়েছি। তাঁকে দেখার কেউ নেই। ইতিমধ্যেই ৪ লক্ষ ১২ হাজার টাকা ওই যুবতীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

আগামীতে যাতে কুশমন্ডির নির্যাতিতার মতন আর কাউকে শিকার না হতে তার জন্য তিনি বলেন, এটাকে রুখতে হবে। মা বোনেদের, ছাত্র, যুবকদের, শ্রমিক, কৃষকদের এগিয়ে আসতে হবে এই ধরণের ঘটনা রোখার জন্য। সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি কন্যাশ্রী ও যুবশ্রীর মেয়েদের এদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান মুখ্যমন্ত্রী। ইন্দ্রনিল সেনের গলায় আমি বাংলায় গান গায় গানের মাধ্যমে জননেত্রীর উক্ত জনসভার পরিসমাপ্তি ঘটে। উপস্থিত হাজার হাজার কর্মী, সমর্থক ও জনসাধারণের ভীড় এক জনসমুদ্রে পরিনত হয় যা এক মিলন মেলার রুপে পরিনত হয়। অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর জনসভাকে কেন্দ্র করে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ও নিরাপত্তার জন্য রাস্তায় প্রচুর পুলিশ রাখা হয় ফলে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা অবধি জেলার সমস্ত যানচলাচল বন্ধ ছিল যার ফলে দুরপাল্লার যাত্রী, চাকরীজীবী ও ছাত্র ছাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হোন। যানজট থাকে প্রায় ৩ ঘন্টাঘন্টা। পরে অবশ্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে আসে।

loading...

এছাড়াও চেক করুন

২৯ শে জুন মুক্তি পাচ্ছে নতুন বাংলা ছবি “K তুমি?…To Love”

অর্ণব নস্কর,কলকাতা:  বাপ্পা সরকার ও রঞ্জিত কারকের যৌথ পরিচালনায় মুক্তি পাচ্ছে তাদের প্রথম ছবি “K …

Leave a Reply

Your email address will not be published.