Breaking News
Home >> Breaking News >> পূজোর বাজারে সোনার গহনা কে টেক্কা দিতে নেমে পরেছে মৃতশিল্পিদের তৈরি টেরাকোটা গহনা

পূজোর বাজারে সোনার গহনা কে টেক্কা দিতে নেমে পরেছে মৃতশিল্পিদের তৈরি টেরাকোটা গহনা

    

পিয়া গুপ্তা, স্টিংনিউজ করেসপনডেন্ট, উত্তর দিনাজপুর : পূজো মানেই তো ম্যাচিং শাড়ি ম্যাচিং জুতো শুধু শাড়ি জুতোই না অলঙ্কার ছাড়া পুরো সাজটাই যেন ফিকে।হাতে মাত্র আর দুটো দিন জামা জুতোর পর এবার পালা   শাড়ি কিংবা চূডিদারের সাথে টেক্কা দেওয়ার মতো অলংকারের।তাই 5 থেকে 50 সকলের ভীড় দোকানে দোকানে।

একটা সময় ছিলো যখন সোনার গহেনার একচেটিয়া চল ছিলো।কিন্তু যুগের সাথে তাল মিলিয়ে  শুধু হালকা পোষাকই নয হলাকা গহনা ও বেঁচে নিচ্ছে বড়ো থেকে ছোটো সকলেই।বর্তমান যুগে অধিকাংশ দেরই পছন্দ হালকা ওজনের সাধারণ গয়না ।আর এর মধ্যে অন্যতম হলো উত্তর দিনাজপুরের মৃত্শিল্পীদের হাতে তৈরি টেরাকোটার গহনার ।

পূজোর মরশুমে উত্তর দিনাজপুরে কারিগরদের হাতে তৈরি টেরাকোটার গয়নার কদর দিন দিন বেড়েই চলেছে।পূজোর আগে থেকেই উত্তর দিনাজপুরে মৃত শিল্পীদের হাতের তৈরি টেরাকোটার কাজে নির্মিত গয়না গুলোর চাহিদা বাজারে তুঙ্গে ।উত্তর দিনাজপুরে কালিয়াগঞ্জ ব্লকের হাটাপাডা  গ্রাম জুড়ে বাড়ির মহিলা থেকে পুরুষ সকলেই লেগে পরেছে টেরাকোটার অলংকার তৈরিতে।এই রকমই এক নামী টেরাকোটা শিল্পী দুলাল রায়ের সাথে কথা বলে জানা গেলো।এবারের পুজোয় তাদের তৈরি গহনা শুধু দেশ না বিদেশেও পারি দিচ্ছে ।হাতের তৈরি অপরূপ নিত্যনতুন কারুকার্য সকলের মন কে আকৃষ্ট করে তুলছে।সকাল থেকে ক্রেতা দের লম্বা লাইন তার বাড়ির সামনে।দেকান গুলোর পাশাপাশি কারিগর দের বাড়িতে ও পরছে লম্বা লাইন। দুলাল রায়  জানালেন তাদের বাড়ির সকলেই এই টেরাকোটা শিল্পের সাথে যুক্ত ।তার পূর্বপুরুষরাও এই মৃত্শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।তাই পূজোর সময় শৌখিন মানুষ দের জন্য মাটির গহনা প্রতি বছরের মতো এবারো তৈরি করে আসছে।

Check Also

​উদ্ধার হল ঝাড়গ্রামের চার বছরের নিখোঁজ কুহু

কার্ত্তিক গুহ,ঝাড়গ্রাম:- ঝাড়গ্রাম শহরে চার বছরের এক শিশুকন্যার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছিল। শিশুটির নাম …

Leave a Reply

Your email address will not be published.