Breaking News
Home >> Breaking News >> সংস্কার চাইছে ভগ্নপ্রায় কাটোয়া স্টেডিয়াম

সংস্কার চাইছে ভগ্নপ্রায় কাটোয়া স্টেডিয়াম


গৌরনাথ  চক্রবর্ত্তী, কাটোয়া, পূর্ব বর্ধমান: কাটোয়া স্টেডিয়ামের ভগ্নপ্রায় অবস্থা। ১২ একর জমির উপর গড়ে ওঠা কাটোয়া স্টেডিয়ামটি আজ অবহেলায় ধীরে ধীরে ধ্বংসস্তুপে পরিণত হচ্ছে।চারিদিকে কংক্রিটের উঁচু দেওয়াল।১৭০০ আসন বিশিষ্ট গ্যালারি। ড্রেসিং রুম রয়েছে। সব থাকলেও তা একযুগ হল, তার জৌলুস আর নেই। স্টেডিয়ামের প্রবেশ পথে কোন গেট নেই। দিনরাত খোলাই পড়ে থাকে। মাঠে গরু,ছাগল ও ভেড়া অবাধেই চড়ছে। কোথাও বাউণ্ডারি ভেঙে পড়েছে।পাঁচিল ভেঙে প্রবেশপথ বেরিয়ে গেছে। দর্শকাসনের পলেস্তারা ক্ষয়ে গিয়ে লোহার জং ধরা রড় বিপদজনক ভাবে বেরিয়ে আছে। বর্ষাকালে মাঠে একহাঁটু  জল। মাঠে খেলা একপ্রকার বন্ধ। অভিভাবকেরা নিরাপত্তার অভাবে মাঠে খেলতে পাঠান না। পরিকাঠামোর অভাবে কোনো ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় না। ক্রীড়াপ্রেমী ও এলাকার বাসিন্দারা  যৌথভাবে বহুবার আবেদন করেছেন স্টেডিয়াম মেরামতির জন্য প্রশাসনের কাছে।প্রতিশ্রুতি ছাড়া আর কিছুই মেলেনি বলে অভিযোগ। 

পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত জ্যোতি বসু ১৯৮২ সালের ১৩ জুন স্টেডিয়ামের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী প্রয়াত সুভাষ চক্রবর্ত্তী ১৯৮৮সালের ২৮ মে স্টেডিয়ামের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ও রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখানে রাজনৈতিক সভা করে গিয়েছেন। আজ বহুস্মৃতি বিজড়িত স্টেডিয়ামটি অবহেলায় ও অনাদরে পড়ে রয়েছে।কাটোয়া মহকুমা ক্রীড়া কমিটির ভলিবল সম্পাদক কিশোর মালাকার বললেন, “কাটোয়ায় একটিমাত্র খেলার মাঠ।অতবড় মাঠ থেকেও খেলোয়াড়রা খেলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমরা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি বহুবার,কিন্তু কোনো সুফল মেলেনি”।

এছাড়াও চেক করুন

ঘাসফুল আর পদ্মফুলের বিরুদ্ধে যে দলই নির্বাচনে লড়াই করবে, তাকেই সমর্থন করবে CPIM : সূর্য্যকান্ত মিশ্র

কার্ত্তিক গুহ,ঝাড়গ্রাম: ঘাসফুল আর পদ্মফুলের বিরুদ্ধে যে দলই নির্বাচনে লড়াই করবে, তাকেই সমর্থন করবে CPIM। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.