Breaking News
Home >> Breaking News >> একই ছাদনাতলায় হিন্দু-মুসলিম বিবাহ বর্ধমানে

একই ছাদনাতলায় হিন্দু-মুসলিম বিবাহ বর্ধমানে

 অনির্বাণ হাজরা,বর্ধমান: গণবিবাহের আসরে ৪২ জোড়া বর কনে। হাজির মন্ত্রী থেকে পুলিশসুপার থেকে কাউন্সিলর থেকে পৌরপতি থেকে নেতা নেত্রী থেকে পাত্র পাত্রীদের বাড়ির সদস্য। স্থান বর্ধমানের কঙ্কালেশ্বরী কালী মন্দির প্রাঙ্গন। গান বাজনা, রকমারী আলো, চোখ ধাঁধানো বিয়ের প্যাণ্ডেল। গণবিবাহের আসর যেন মেলার আসর। থুড়ি মেল বন্ধনের আসর। শুধু কি তাই গণবিবাহের আসরে হিন্দু মুসলিম ঐক্যের সুর। মিলন ক্ষেত্র কঙ্কালেশ্বরী কালী মন্দিরের গণবিবাহের আসর। ৪০ জোড়া হিন্দু পাত্র পাত্রীর পাশাপাশি দুজোড়া মুসলিম বর কনে।শুভ দৃষ্টি থেকে মালাবদল সবই তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করলেন মন্ত্রী স্বপন থেকে এসপি কুণাল থেকে বিধায়ক রবি। কিংবা কাউন্সিলর খোকন থেকে পৌরপতি স্বরূপ। সকলেই বিয়ের আসরে একেবারে মশগুল। শুধুই কি বিয়ে দিয়েই কাজ শেষ। নব দম্পতির জন্য একমাসের চাল, ডাল, নুন, তেল। যৌতুক হিসাবে নগদ টাকা, জীবনবীমা,খাট, আলমারী, টিভি, ঘড়ি, সোনার আংটি, সাইকেল। আর ছিল ভুরি ভোজের আয়োজন। গোটা বিয়ের আসরে কোন ত্রুটি রাখেন নি মূল উদ্যোক্তা কাউন্সিলর খোকন দাস। জমজমাট গণবিবাহের আসরে শুধুমাত্র রথতলা নয় হাজির হয়েছিল গোটা বর্ধমান শহরের নাগরিকরা। রাজার শহরে রাজ কন্যা, রাজ পুত্রদের বিয়ে বলে কথা। তাই কোন খামতি ছিল না বিয়ের আসরে। রীতিমত হিন্দু শাস্ত্রীয় মতে ও মুসলিম ধর্মীয় মেনেই ৪২ জোড়া পাত্র পাত্রীর বিয়ে সম্পন্ন হয়। বৃষ্টি ভেজা অগ্রাহায়ণের শেষ সপ্তাহে মহাধুমধুাম করে কার্যত ঘটা করেই বিয়ের আসর জমে উঠলো। খুশী নবদম্পতি থেকে উদ্যোক্ত সকলেই। মধুরেণ সমাপয়েৎ ।

Check Also

জেলা বিজেপি পার্টী অফিসে নেতাজীর জন্মজয়ন্তী পালন

কমল দত্ত, নদিয়া: নেতাজীর ১২১ তম জন্মদিবস পালিত হল সারাদেশে।পাশাপাশি এদিন সকালে নদিয়ার ভারতীয় জনতা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.