Breaking News
Home >> Breaking News >> এক গ্রাম্য গৃহবধূর খোঁজ পেতে সোশ্যাল মিডিয়ার খবরদারি, আসল সাফল্য

এক গ্রাম্য গৃহবধূর খোঁজ পেতে সোশ্যাল মিডিয়ার খবরদারি, আসল সাফল্য

কল্যাণ অধিকারী, স্টিং নিউজ করেসপনডেন্ট, হাওড়া: সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে এখন ঘরেঘরে পৌঁছে যাচ্ছে সমস্তকিছুর ছবি ও খবর। সে হতে পারে হাসপাতালের মেঝেতে শুয়ে আছেন রোগী, রয়েছে বিভিন্ন ধরণের দুষ্কর্মের খবর, তারকাদের সাম্প্রতিক ছবি। তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে গেছে এক গ্রাম্যবধূর হারিয়ে যাওয়ার ঘটনা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় দিনভর বুঁদ থাকার জন্য অভিভাবকরা অনেক সময় বিধিনিষেধ আরোপ করে থাকেন। সেই সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে এক মাঝবয়েসী গৃহবধূর হারিয়ে যাওয়ার ঘটনা পোষ্ট করেন এক জনৈক। তা মুহূর্তে যুব সমাজের পেজে শেয়ার হতে শুরু করে। ঘটনাটি হাওড়া গ্রামীণ আমতা থানার বসন্তপুর গ্রামের। সপ্তাহখানেক আগে বছর ৩৮ এর শকুন্তলা খোটেল হারিয়ে যায়। ওই গৃহবধূর এক চোখের মণি সাদা। এখানে-ওখানে খোঁজখবর করেও কোন হদিস মেলেনি। বাধ্য হয়ে চলতি মাসের ১৫ তারিখ আমতা থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করা হয়। তবে পুলিশের খাতায় ডায়েরি করেও খুঁজে পাওয়ার ব্যাপারে সন্দিহান ছিলেন পরিবারের সকলে। 
যুব সমাজে ফেসবুক জনপ্রিয়তারতার শীর্ষে তা গ্রামবাংলার মানুষজন ইতিমধ্যে বুঝে গেছে। শেষমেশ ফেসবুকে মহিলার ছবি সমেত বিবরণ দিয়ে খুঁজে দেবার আবেদন করা হয়। প্রথম দিনে প্রায় শতাধিক শেয়ার হয়। জেলার প্রায় সর্বত্র ছড়িয়ে যায় খবর। যা স্বামী তপন খোটেল না বুঝলেও বাড়ির যুবকরা বুঝতে পারে এবার হয়ত খোঁজখবর পাওয়া যেতে পারে। তবে হাত গুটিয়ে ছিলনা পরিবারও। প্রতিটা আত্মীয়ের বাড়িতেও খবর জানানো হয়। সোশ্যাল মিডিয়ার ছবি ও পরিচয় দেখে নলপুর স্টেশনে এক মাঝবয়েসী মহিলাকে দেখে আত্মীয়দের খবর দেওয়া হয়। পরে উদ্ধার হয় মহিলা।
এ দিন ফোনে শকুন্তলা খোটেলের পরিবার জানায়, “ফেসবুক থেকে বেশি সহায়তা মিলেছে। অনেকে ফোন করে ডিটেলশ নেয়। গতকাল খুঁজে পাওয়া যায়।”

বাড়িতে নিয়ে আসা হয়েছে শকুন্তলা দেবীকে। কদিনের ঝক্কি মিটে শকুন্তলা দেবী ফিরে পেয়ে স্বস্তি মিলেছে। পেঁড়ো-বসসন্তপুর এলাকার ফেসবুক ব্যবহারকারী জনৈকা রুবি পালের কথায়, “দৈনন্দিন জীবনে ঢুকে পড়া সোশ্যাল মিডিয়া যুব সমাজের কাছে ভালো দিক তুলে ধরছে। আজকের দিনে ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে খুব সহজ হয়েছে কোনকিছু খুঁজে পেতে। খুব সহজে একে অপরের কাছে পৌঁছে যাওয়া যায়। এক্ষেত্রে খুঁজে পেতে তেমনি সুবিধা হয়েছে।” এর আগে গত সপ্তাহে উলুবেড়িয়া থানা এলাকায় এক মোবাইল চুরির কিনারা করা গিয়েছিল। সেক্ষত্রেও অন্তরায় ছিল ফেসবুক। মোবাইল চুরির সিসিটিভি ফুটেজ ফেসবুকে দিতেই হাতেনাতে ধরা পড়ে যায় চোর বাবাজি।

Check Also

​বেআইনি কয়লা আটক করল সিআইএসএফ 

সুকান্ত বাগ্দী, স্টিং নিউজ করোসপডেন্ট, পশ্চিম বর্ধমান: মঙ্গলবার সকালে পশ্চিম বর্ধমান জেলার পান্ডবেশ্বরে শুরু হয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published.